মুর্শিদাবাদের ৬ জঙ্গির সঙ্গে যোগ ছিল পুলওয়ামার আত্মঘাতী জঙ্গির সঙ্গে, উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য

প্রতীক ছবি

সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ এবং কেরালার এর্নাকুলাম থেকে আল-কায়দা জঙ্গি গোষ্ঠীর ৯ জন সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে জাতীয় তদন্তকারী দল। এরপর ওই জঙ্গিদের জেরা করে বিস্ময়কর তথ্য পেলেন তদন্তের সাথে যুক্ত আধিকারিকরা। উপত্যকা অঞ্চলে পুলওয়ামা আক্রমণের সময় আত্মঘাতী জঙ্গি আদিল আহমেদ দারের সাথে যোগাযোগ রাখছিল এই নয় জন আল-কায়দা জঙ্গী’। তদন্তকারীরা জানালেন, পুলওয়ামা হামলা ঠিক এক সপ্তাহ আগেও পুলওয়ামায় আত্মঘাতী জঙ্গি আদিল আহমেদ দারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল ধৃত মুর্শিদ এবং নাজমুস শাকিব।

জাতীয় তদন্তকারী সংস্থার গোয়েন্দারা ধৃত জঙ্গিদের স্মার্টফোন এবং ল্যাপটপ বাজেয়াপ্ত করে সমস্ত তথ্য খুঁটিয়ে বিবেচনা করেছেন।হোয়াটসঅ্যাপ, টেলিগ্রাম ও অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়ায় জঙ্গিদের বেশ কয়েকটি গ্রুপ খুঁজে পেয়েছেন তারা। এই গ্রুপের মাধ্যমে জঙ্গী কার্যকলাপের আলোচনা চালাতো সন্ত্রাসবাদীরা। এখানেই জঙ্গিদের সাথে আদিল আহমেদ দারের কথোপকথন উদ্ধার করেছেন গোয়েন্দারা।

গ্রুপের একটি কথোপকথন রীতিমতো অবাক করে দিয়েছে গোয়েন্দাদের। পুলওয়ামা হামলার এক সপ্তাহ আগেই গ্রুপের মাধ্যমে জঙ্গিদের নিশ্চিতভাবে জানানো হয়, ভারতীয় সেনাবাহিনীর ওপর হামলা হতে চলেছে। এক সপ্তাহ পরে যখন জঙ্গিরা তাদের সন্ত্রাসবাদি কার্যকলাপে সফল হয় অর্থাৎ পুলওয়ামা অ্যাটাকের পর গ্রুপে পাকিস্তানের স্তুতিবাক্য করতে শুরু করে দেয় সন্ত্রাসবাদীরা।

গোয়েন্দা বিভাগ সূত্রে খবর, ইসলামিক স্টেট, আল কায়দা ইন ইন্ডিয়ান সাবকন্টিনেন্ট, জইশ-ই-মহম্মদের মতো সন্ত্রাসবাদি জঙ্গি সংগঠনের নেতারা এই ধরনের গ্রুপে নেতৃত্ব দিচ্ছে। তারা তাদের অধীনস্থ সদস্যদের প্রতি মুহূর্তে ভারতবিরোধী করে তুলছে। এদের একটাই লক্ষ্য, ভারতের মাটিতে সন্ত্রাস ছড়ানো। পাকিস্তানের বসেই ভারতের বিরুদ্ধে ঘুঁটি সাজাচ্ছে সন্ত্রাসবাদীরা। আর তাতে গুটি হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে গোপনে ভারতে বসবাসকারী এইসব জঙ্গিরা।