বাজপেয়ীর পর এবার আইজি নোবেল পাচ্ছেন মোদী, জেনে নিন কারন

নোবেল পুরস্কারে ভূষিত হতে চলেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তবে তা সাধারন নোবেল নয়। যে নোবেলের জন্য মনোনীত হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী, তার নাম আইজি নোবেল। ব্যঙ্গাত্মক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে রাষ্ট্রনায়কদের এই নোবেল প্রদান করা হয়ে থাকে। বিশেষজ্ঞদের মতে, আইজি নোবেল কিন্তু কোনো পুরস্কার নয়। সাধারণত কোনো একটি ঘটনাকে ব্যঙ্গাত্মক দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে বিচার করে সেই ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের এই ব্যঙ্গমূলক আইজি নোবেল দেওয়া হয়ে থাকে।

এই নোবেল এবার পেতে চলেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তবে, ভারতের ক্ষেত্রে কিন্তু এই নোবেল আগেও একজন পেয়েছেন। তিনি হলেন ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী। উল্লেখ্য, ভারতের পর্যন্ত যে দুজন প্রধানমন্ত্রী আইজি নোবেলের জন্য মনোনীত হলেন, তারা দুজনেই কিন্তু বিজেপি দলের প্রধান। অটল বিহারি বাজপেয়ি ১৯৯৮ সালে “আগ্রাসী অথচ শান্তিপূর্ণ” ভাবে ভারতে পরমাণু অস্ত্র পরীক্ষা করার জন্য আইজি নোবেল পেয়েছিলেন।

উল্লেখ্য, অ্যানালস অফ ইমপ্রোবাবল রিসার্চ ম্যাগাজিনের তরফ থেকে হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের স্যান্ডার্স থিয়েটারে প্রতিবছর বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের রাষ্ট্রনেতাদের মজা করেই এই বিশেষ ব্যঙ্গাত্মক নোবেল দেওয়া হয়। এ বছর এই নোবেল পাবেন নরেন্দ্র মোদি। আইজি নভেল কর্তৃপক্ষ সূত্রে খবর, করোনা মহামারীতে দেশবাসীকে যেভাবে মহামারীর ভয়াবহতা সম্পর্কে বোঝাতে পেরেছিলেন প্রধানমন্ত্রী, বিশ্বের তাবড় বৈজ্ঞানিকেরা তা পারেননি।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘ ছয় মাসে স্পষ্ট বুঝিয়ে দিয়েছেন, সাধারণ মানুষের জীবন এবং মৃত্যুর উপর রাজনৈতিক নেতাদের প্রভাব সবথেকে বেশি পড়ে। বিজ্ঞানীদের থেকেও বেশি। তাই চিকিৎসা শিক্ষায় তার বিশেষ অবদানের জন্যেই এবছর আইজি নোবেলের মনোনয়ন পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। উল্লেখ্য, ভারতের প্রধানমন্ত্রীর পাশাপাশি এবছর আইজি নোবেল প্রাপকদের তালিকায় নাম তুলেছেন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বলসেনারো, ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন-সহ আরও অনেক দেশের রাষ্ট্রনায়কেরা।