কথা মতই কাজ, ঘোষণার ১২ ঘণ্টার মধ্যেই প্লে স্টোর থেকে উধাও টিকটক

টিকটক নিয়ে শুরু হয়েছে নতুন এক ঝামেলা। ভারত সরকার জানিয়েছে টিকটক ভারতের সব কিছু তথ্য অনায়াসেই চিনের সরকারের কাছে পৌছে দেয়, আর সেটার ওপরে ভিত্তি করে তারা ব্যবসা করে। কিন্তু এই দাবি মানতে নারাজ সেই সংস্থা। লাদাখ সীমান্তে ভারত ও চিনের মধ্যে যে উত্তাপের সৃষ্টি হয়েছে সেটার কারণেই এবার চিনের কোনো অ্যাপই আর ব্যবহার করা হবে না ভারতে। এমনটাই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে ভারতের তরফ থেকে। কারণ তাদের দাবি চিন দেশের মানুষের বিভিন্ন তথ্য নিয়ে অন্যান্য কাজ করে।

টিকটক ইন্ডিয়ার প্রধান নিখিল গান্ধী জানিয়েছেন, এখন ভারতের তরফ থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে ৫৯ টি অ্যাপ চিনা বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। যার মধ্যে নাম রয়েছে টিকটকের। এই সিদ্ধান্ত টিকটকের তরফ থেকে মেনে নেওয়া হয়েছে। তবে তিনি জানিয়েছেন, এই অ্যাপটি আত্মপক্ষের সমর্থন পাবে, তবে এই নিয়ে আলোচনায় বসবে বলেও জানা গেছে। কিন্তু এখানেই শেষ না, তিনি আরও জানায়, আসলে ভারতের যে নিয়ম আছে নিরাপত্তা ও ডেটা প্রাইভেসি সংক্রান্ত নিয়ম মেনে চলা, সেটাকেই মেনে চলে টিকটক, দেশের তথ্য কোনোভাবেই বাইরে যায় না।

আপাতত এখন টিকটকের দেখা মিলছে না প্লেস্টোরে। তবে এখন অফিসিয়াল ঘোষণা হয় নি, এই সম্পর্কে। টিকটকের মতো আরও অনেক চিনা অ্যাপ বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। মোট ৫৯ টি অ্যাপ বাতিল করা হয়েছে। কেন্দ্রের তরফ থেকে জানানো হয়েছে ভারতের ক্ষতি বিভিন্ন দিক থেকে, প্রতিরক্ষা, সার্বভৌমত্ব ও অখন্ডতার দিক থেকেও। এবার সেই কথা মাথায় রেখেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তরফ থেকে করা হল ডিজিটার সার্জিক্যাল স্ট্রাইক। যার সাথে জড়িয়ে আছে গালোয়ানে চিনের সাথে বিবাদ, মুখে না বললেও এটাই যে তার মূল কারণ সেটা বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন।