অনলাইন ক্লাসে অসুবিধা, পড়ুয়াদের সুবিধার্থে প্রত্যন্ত গ্রামে মোবাইল টাওয়ার বসালেন সোনু

সম্প্রতি, হরিয়ানার এক গ্রামে একটি গাছের ডালে বসে একটি বাচ্চাকে মোবাইলের সিগনাল ধরার চেষ্টা করতে দেখা গিয়েছিল। সে এভাবে কষ্ট করে মোবাইলের নেটওয়ার্ক ধরার চেষ্টা করছিল যাতে, গাছের নিচে থাকা অন্যান্য পড়ুয়ারা পড়াশোনা চালিয়ে যেতে পারে। এই ঘটনার একটি ভিডিও করে তা সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করা হয়। তবে শেয়ার করার আগে অভিনেতা সোনু সুদ এবং তার বন্ধু করণ গিলহোত্রকে ট্যাগ করা হয়।

এই ভিডিওটি নজরে পড়ে তাদের। সাথে সাথেইগ্রামের পড়ুয়াদের জন্য সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন তারা। হরিয়ানার ওই গ্রামে নিরবিচ্ছিন্ন নেটওয়ার্ক সুনিশ্চিত করতে এয়ারটেলের একটি টাওয়ার বসিয়ে দিলেন সোনু সুদ এবং তার বন্ধু। পাঞ্জাবের পিএইচডি চেম্বারের চেয়ারম্যান করণ গিলহোত্র এ প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বললেন, প্রাথমিক শিক্ষা অর্জনের জন্য শিশুদের এই কঠোর পরিশ্রম দেখে খুব খারাপ লেগেছিল তাদের।

তিনি আরও জানালেন, ঘটনাটি নজরে আসতে প্রথমেই ইন্ডাস টাওয়ার এবং এয়ারটেলের সঙ্গে যোগাযোগ করেন তারা। এই দুটি সংস্থাই ওই এলাকায় টাওয়ার ইনস্টল করেছে। পড়ুয়ারা যাতে বাড়িতে বসেই অনলাইন ক্লাসের সুযোগ সুবিধা নিতে পারে, সেই উদ্দেশ্যেই তাদের এই প্রচেষ্টা। তিনি আরো বলেন, এইরকম এক কঠিন পরিস্থিতিতে দুঃস্থদের সাহায্য করার জন্য, যা কিছু করা সম্ভব তারা তা করবেন।

অভিনেতা সোনু সুদ জানালেন, শিশুরা জাতির ভবিষ্যৎ। তাদের উন্নত ভবিষ্যতের কামনা করে তিনি বলেন, দেশের প্রতিটি শিশু ভালো ভবিষ্যৎ গড়ে তোলার জন্য সমান সুযোগের অধিকারী। তিনি আরো বলেন, কঠিন পরিস্থিতির দরুন যে চ্যালেঞ্জের সৃষ্টি হয় তা কখনোই কোনো মানুষের লক্ষ্যে পৌঁছনোর পথে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে না। তিনি জানিয়েছেন, প্রত্যন্ত অঞ্চলে শিশুদের অনলাইনে শিক্ষা লাভের সুরাহা করতে পেরে তিনি খুব সম্মানিত বোধ করছেন। উল্লেখ্য, লকডাউনের মধ্যে দেশের হাজার হাজার পরিযায়ী শ্রমিকের পাশে রীতিমতো দেবদূতের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন সোনু সুদ। এবার আবারো দুঃস্থ শিশুদের সাহায্যার্থে এগিয়ে এলেন সোনু সুদ।