কঙ্গনা ইস্যুতে বাড়ছে উদ্বেগ, উদ্ধবের সঙ্গে জরুরি বৈঠকে শরদ পাওয়ার

সম্প্রতি, কঙ্গনা রানাওয়াতের মণিকর্ণিকা ফিল্মসের অফিস নির্মাণে বেআইনি কার্যকলাপের অভিযোগ তুলে অফিসটি ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছিল বৃহন্মুম্বই পুরনিগম। তবে হাইকোর্টের হস্তান্তরে তা স্থগিত হয়ে যায়। রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন, বিএমসির এই পদক্ষেপের জেরে মহারাষ্ট্রের শিবসেনা এবং এনসিপির জোট সরকারের মধ্যে নাকি বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে।

রাজনৈতিক মহল সূত্রে খবর, এই বিতর্কের অবসান ঘটাতে বুধবার সন্ধ্যায় মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ভব ঠাকরে এবং শিবসেনার নেতা সঞ্জয় রাউতের সাথে এনসিপির প্রধান শরদ পাওয়ার একটি বৈঠকের আয়োজন করেছেন। উল্লেখ্য, কঙ্গনা রানাওয়াত প্রসঙ্গে শরদ পাওয়ার মন্তব্য করেছেন, বিএমসির পদক্ষেপে কঙ্গনা রানাওয়াত “অপ্রয়োজনীয় পাবলিসিটি” পাচ্ছেন।

তার বক্তব্য, মুম্বাইয়ে এরকম অনেক বেআইনি নির্মান রয়েছে। সেগুলির বিরুদ্ধে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ার অধিকার রয়েছে বিএমসির। তবে, অভিনেত্রীর ক্ষেত্রে সংবাদ মাধ্যম গুলির জন্য বিষয়টি অন্যমাত্রা লাভ করছে। তাই বিতর্কের প্রেক্ষাপটে এই বিষয়টিকে স্রেফ উপেক্ষা করে যাওয়াই ভালো।

উল্লেখ্য, বলিউড “কুইন” কঙ্গনা রানাওয়াত একটি টুইটে মুম্বাইকে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের সাথে তুলনা করেছিলেন। তার সেই বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে রাজনৈতিক মহলের সাথে প্রকাশ্যেই দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন তিনি। তার পাল্টা হিসেবে, মুম্বাইয়ের পালি হিলসে অবস্থিত কঙ্গনার অফিস “বেআইনিভাবে নির্মিত” অভিযোগ তুলে ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে সরকার।

এর পরিপ্রেক্ষিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় আক্রমণাত্মক রূপ ধারণ করেন কঙ্গনা। তার অফিস ভাঙচুরের ভিডিও পোস্ট করে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ভব ঠাকরে প্রতি প্রকাশ্যে বিদ্রুপ করে তিনি বলেন, ফিল্মি মাফিয়াদের সঙ্গে মিলে কঙ্গনার বাড়ি ভাঙার চেষ্টা করলে, তার ফল ভালো হবে না। মুখ্যমন্ত্রীকে প্রকাশ্যে “তুই” বলে সম্বোধন করে কঙ্গনার বক্তব্য,” আজ আমার বাড়ি ভাঙছে, কাল তোর অহংকার ভাঙবে।”