বয়কট আন্দোলনে আরো একধাপ, কলকাতায় নিষিদ্ধ চীনা মাঞ্জা

ভারত এবং চীন সংঘাতের পর থেকেই ধীরে ধীরে এক একটা করে চীনা পণ্য বয়কট করছে ভারত। গতকাল ভারতের সমস্ত ফোনের ডিভাইস থেকে টিকটক কে ব্যান করে দেওয়া হল। এর সাথে সাথে ব্যান করে দেওয়া হলেও আরও ৫৯ টি চিনা অ্যাপ।
ভারতের মানুষদের স্বনির্ভর হওয়ার জন্য ডাক দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।চীনা পণ্য বয়কট সঙ্গে সঙ্গে, এবার চিনা মাঞ্জা যা নিষিদ্ধ করা হলো রাজ্য থেকে। ভারতীয় সুতার থেকে চিরকালই চিনা মাঞ্জা র কদর ছিল বেশি। খুব ধার দেওয়া থাকতো এই সুতো গুলিতে, ফলে ঘুড়ি ওড়ানোর ক্ষেত্রে সুবিধা হত।

চিনা মাঞ্জার বিরুদ্ধে যে মামলা করা হয়েছে,সেই মামলার বয়ান অনুযায়ী ২০১৭ সালে মামলাকারী জয়ন্ত সামন্ত পার্ক সার্কাস ফ্লাইওভারের ওপর দিয়ে যাবার সময় চিনা মঞ্জায় আহত হন।এরপর থেকে একাধিকবার বিভিন্ন জায়গা থেকে উঠে আসে চিনা মাঞ্জা তে আক্রান্ত ব্যক্তির খবর।অসংখ্য মানুষ রোজ নিজস্ব কাজে দু চাকার বাইক নিয়ে বিভিন্ন ফ্লাইওভার দিয়ে যাতায়াত করেন। তিলজলা, প্রগতি ময়দান, তপসিয়া থানায় একের পর এক চিনা মঞ্জায় আহত হওয়ার অভিযোগ জমা পড়তে থাকে।

চিনা মাঞ্জা প্রতিরোধের জন্য নিষিদ্ধ করার আবেদন নিয়ে দুই হাজার কুড়ি সালের জানুয়ারি মাসে কলকাতা হাইকোর্টে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেন মামলা খারিজ জয়ন্ত সামন্ত। মামলা চলাকালীন আরো বেশ কয়েকটি জায়গায় দুর্ঘটনা ঘটেছিল, এবং সর্বশেষ লকডাউন চলাকালীনও চিনা মাঞ্জা তে আহত হয়ে শেষে মৃত্যু হয় এক বাইক চালকের।তাই মঙ্গলবার রাজ্যকে চিনা মাঞ্জা নিষিদ্ধ সম্পর্কিত বিজ্ঞপ্তি অবিলম্বে জারি করার নির্দেশ দিল কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি রাধাকৃষ্ণন এবং বিচারপতি অরিজিত বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চ।