১ মে থেকে এইসব রা’জ্যে না’ও হ’তে পা’রে ১৮ বছরের ঊ’র্ধে টি’কা’ক’র’ণ!

আগামী ১লা মে থেকে দেশজুড়ে ১৮-৪৫ বছর বয়সীদের গণহারে টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হবে। তবে ওই নির্দিষ্ট দিন থেকেই যে দেশের সব কটি রাজ্যে টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হচ্ছে এমনটা কিন্তু নয়। মুম্বাই, দিল্লি, মধ্যপ্রদেশ, ঝারখন্ড, বিহারে পয়লা মে থেকে টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হচ্ছে না। টেকনিক্যাল কিছু সমস্যার জন্য দেশের বেশ কয়েকটি রাজ্য এখনই টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু করতে পারছেনা।

এর মধ্যে প্রথমেই রয়েছে মুম্বাই। ভ্যাকসিনের পর্যাপ্ত ডোজ না থাকায় শুক্রবার থেকে ৩ দিনের জন্য ভ্যাকসিনেশন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে মুম্বাইয়ে। BMC-এর তরফে জানানো হয়েছে ৪৫ ঊর্ধ্ব নাগরিকদের জন্য ভ্যাকসিনেশন প্রক্রিয়া এখন জারি থাকছে। তাই এই সময়ে ভ্যাকসিন সেন্টার গুলিতে রাজ্যবাসীকে অযথা ভিড় করে আসতে নিষেধ করা হয়েছে।

দিল্লিতেও একই পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে। দিল্লির করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ। দিল্লি সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছে এই মুহূর্তে প্রশাসনের হাতে ভ্যাকসিন নেই। ভ্যাকসিন সরবরাহকারী সংস্থার থেকে ভ্যাকসিন জোগাড় করে তবেই টিকা প্রদান সম্ভব। ইতিমধ্যেই দিল্লীর তরফ থেকে ভ্যাকসিন সরবরাহকারী সংস্থার কাছে আবেদন জানানো হয়েছে।

মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান জানিয়ে দিয়েছেন ভ্যাকসিন সরবরাহকারী সংস্থার কাছে কোভিশিল্ড ও কোভ্যাকসিনের অর্ডার দেওয়া হয়েছে। পয়লা মের মধ্যে তা এসে না পৌঁছলে গণহারে টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু করা সম্ভব নয়। পাশাপাশি ঝাড়খন্ডে সরকার ইতিমধ্যেই সেরাম এবং ভারত বায়োটেকের কাছে ২৫ লক্ষ টিকার আবেদন জানিয়ে পাঠিয়েছে। সংস্থার তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে শুধু কেন্দ্র সরকারের অর্ডার দিতেই অন্ততপক্ষে ১৫-২০ মে পর্যন্ত সময় লাগবে। তাই ঝাড়খন্ডে এখনই টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হচ্ছে না। বিহারের পরিস্থিতিও একই রকম। সেই রাজ্যে এখনই টিকাকরণ শুরু হচ্ছে না। তবে রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া জারি থাকবে বলে জানানো হয়েছে।