দাবি করা টাকা মেলেনি পরিবারের থেকে, শিশুকে ছুঁড়ে ফেললো এক স্বাস্থ্যকর্মী, গন্ডগোল হাসপাতালে

হাসপাতাল কর্মীর দাবিমতো টাকা দিতে অসমর্থ হওয়াতে চরম অমানবিক পরিণতির শিকার হতে হলো এক সদ্যোজাতকে। টাকা না পেয়ে সদ্যোজাতকে কোল থেকে ছুঁড়ে ফেলে দিল স্বাস্থ্যকর্মী! চরম ঘৃণ্য এবং অমানবিক এই ঘটনাটি ঘটেছে রায়গঞ্জ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। ঘটনার জেরে মুহূর্তের মধ্যে উত্তাল হয়ে ওঠে হাসপাতাল চত্বর। ঘটনার শিকার ওই শিশুটির অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানানো হয়েছে।

সূত্রের খবর, উত্তর দিনাজপুরের হাতিয়ার পাঠানতুলির বাসিন্দা ওই শিশুটির পরিবার। শিশুর বাবা মাসুদ আলি কর্মসূত্রে দীর্ঘদিন ধরেই কেরলে ছিলেন। সন্তানসম্ভবা স্ত্রীর পাশে থাকার জন্য গত বারো দিন আগেই রাজ্যে ফিরে এসেছেন তিনি। শনিবার সন্তানসম্ভবা স্ত্রী মেহরুল বেগমকে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করেন তিনি। রবিবার তার স্ত্রী এক কন্যাসন্তানের জন্ম দেন।

সোমবার সকালে হাসপাতালের প্রসূতি বিভাগের এক স্বাস্থ্যকর্মী শিশুর পরিবারের থেকে ১০০০ টাকা দাবি করে। শিশুটি তখন তার কোলেই ছিল। পরিবার সেই টাকা দিতে অসমর্থ হওয়াতে শিশুটিকে কোল থেকে ছুঁড়ে ফেলে দেয় ওই স্বাস্থ্যকর্মী। যার জেরে শিশুটি গুরুতরভাবে আহত হয় বলেই জানা গিয়েছে। বর্তমানে সে হাসপাতালে আইসিইউ বিভাগে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এদিকে স্বাস্থ্যকর্মীর এমন অমানবিক আচরণের জেরে স্বভাবতই হাসপাতালে ধুন্ধুমার কান্ড বেধে যায়। শিশুর পরিবার ও অন্যান্য রোগীর পরিবারের সদস্যরা প্রসূতি বিভাগে জড়ো হয়ে ভাঙচুর চালানোর চেষ্টা করেন। খবর পেয়ে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ ও ব়্যাফঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। রায়গঞ্জ মেডিক্যাল কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়েছেন।