কৃষিবিল নিয়ে সংসদে মর্যাদা উলঙ্ঘন, রাজ্যসভা থেকে সাসপেন্ড ডেরেক সহ ৮ সাংসদ

সংসদের বাদল অধিবেশনে কেন্দ্রের প্রস্তাবিত নতুন কৃষি বিল সম্পর্কে রাজ্যসভায় প্রতিবাদ করেছিলেন তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন-সহ আট জন সাংসদ। তার ফলশ্রুতি হিসেবে সংসদের মর্যাদা লঙ্ঘনের অপরাধে এক সপ্তাহের জন্য রাজ্যসভা থেকে সাসপেন্ড হলেন ওই আটজন সাংসদ। রাজ্যসভার অধিবেশনে ডেপুটি চেয়ারম্যানের প্রতি দুর্ব্যবহার করার অভিযোগে সোমবার লোকসভার চেয়ারম্যান এম ভেঙ্কাইয়া নাইডু তৃণমূলের আট সংসদকে এক সপ্তাহের জন্য রাজ্যসভা থেকে বহিষ্কার করে দিলেন।

রাজ্যসভার চেয়ারম্যানের সিদ্ধান্ত অনুসারে, ডেরেক ও ব্রায়েন, সঞ্জয় সিং, রাজু সাতাব, কে কে রাগেশ, রিপুন বোরা, দোলা সেন, সৈয়দ নাজির হুসেন এবং এলামারান করিম আগামী এক সপ্তাহের জন্য রাজ্যসভার অধিবেশনে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। এদিনের অধিবেশনে সাংসদদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ভেঙ্কাইয়া নাইডু বলেছেন, সংবিধানের আইন অনুযায়ী ডেপুটি চেয়ারম্যানের প্রতি অনাস্থা প্রস্তাব আনতে পারেন না সাংসদেরা। সাংসদদের আচরণে ক্ষুব্ধ রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যান জানালেন, গতকাল ওয়েলে নেমে সংসদের ডেপুটি চেয়ারম্যানকে রীতিমত হুমকি দিয়েছেন। তাকে তার কাজ করতে বাধা দেওয়া হয়েছে। রাজ্যসভার জন্য এই দিন খুবই খারাপ দিন।

পাশাপাশি, এদিনের বক্তব্যে চেয়ারম্যান সাংসদদের আত্মসমীক্ষা করার পরামর্শ দিয়েছেন। এর পরেই আট তৃণমূল সাংসদকে আগামী সাত দিনের জন্য সাসপেন্ড ঘোষণা করেন বেঙ্কাইয়া নাইডু। সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, গতকাল কেন্দ্রের প্রস্তাবিত কৃষি বিল সম্পর্কে প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে পোডিয়ামের মাইক কেড়ে নেন উত্তেজিত সাংসদেরা। শুধু তাই নয়, সংসদের রুল বুক এবং কাগজপত্র ছিড়ে দেওয়ারও অভিযোগ উঠেছে ডেরেক ও ব্রায়েনের বিরুদ্ধে।

তবে এই অভিযোগ সম্পূর্ণ ভাবে মিথ্যা বলে দাবি করেছেন ডেরেক। তিনি জানিয়েছেন, ওই সময় তিনি চেয়ারম্যানকে রুল বুক দেখাতে গিয়েছিলেন, সংসদে মার্শাল তাকে সরিয়ে দেন। উল্লেখ্য, অশান্তির জেরে রাজ্যসভার অধিবেশন ১০ মিনিটের জন্য মুলতবি করে দেওয়া হয়। ১০ মিনিট পরে ধ্বনি ভোটে পাশ হয়ে যায় কৃষি বিল। এরপরেই চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনেন বিরোধীরা।