বিয়ে করার নেশায় বউয়ের সংখ্যা এক ডজন, সংসার খরচ না পেয়ে পুলিশের দ্বারস্থ ১২ জন স্ত্রী

ঘটনাটি ঘটেছে বাংলাদেশের ঠাকুরগাও এলাকায়, ব্যাক্তির নাম আবুল হোসেন ভান্ডারে। বাসিন্দা আবুল হোসেন এক ডজন বিয়ে করেছেন তাও আবার আইনসম্মতভাবে। তিনি একজন মাদক ব্যবসায়ী এবং পাশাপাশি একটি পানের দোকান আছে। 55 বছর বয়সের আবুল হোসেন তার প্রত্যেকটি স্ত্রীকে শারীরিক নির্যাতন করতেন ।পরে তারা এই নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে পুলিশের কাছে দ্বারস্থ হয় এবং তার নামে অভিযোগ করেন।

স্হানীয় বাসিন্দাদের বক্তব্য অনুযায়ী, বিয়ে করার একটি নেশার রয়েছে আবুল হোসেনের এবং তার প্রথম স্ত্রীর বাবা মারা গেলে তার সমস্ত সম্পত্তি নিজের নামে লিখেও নেন আবুল, কথা বলতে গেলে আবুল হোসেন একজন দুশ্চরিত্রের লোক। হাসমের এক স্ত্রীর বক্তব্য অনুযায়ী, তার উপর তার স্বামী পাশবিক অত্যাচার করতেন এবং তার মা ভাই বোনকে বাড়ি থেকে বের করে দিয়েছেন এবং অনেকবার তাকে মারার পরিকল্পনাও করেছেন। স্হানীয় বাসিন্দাদের অনেকের মতে আরো অনেক স্ত্রী রয়েছে যা এখনো গোপনীয় রয়েছে।

হোসেনের আরেক স্ত্রীর বক্তব্য অনুযায়ী, আবুল একজন খুবই খারাপ অসৎ প্রকৃতির মানুষ তিনি তার ভরণপোষণের দায়িত্ব ও স্বামীর কর্তব্য ঠিকমত পালন করতো না। খালি কাগজে আমার স্বাক্ষর নিয়ে অনেক আজেবাজে কথা লিখে আমার নামে দুর্নাম করে বেরিয়েছে সবার কাছে। এই সম্বন্ধে থানার ওসি বলেছেন,মাদসাপাড়া এলাকার এক মহিলা আবুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছেন, তারপরেই সমস্ত কিছু তথ্য জানা যাচ্ছে হাসামের কুকীর্তির ব্যাপারে এবং মহিলা দাখিল করেছেন যে তিনি আদালতেরও পরামর্শ নেবেন।