হাথরস কাণ্ডে নয়া মোড়, অভিযুক্তের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল নির্যাতিতার ভাইয়ের

উত্তরপ্রদেশের হাথরাস গণধর্ষণ কাণ্ড নিয়ে উত্তরপ্রদেশের সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসছে সারাদেশ। এই নৃশংস অত্যাচারের তদন্ত করছে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ। সম্প্রতি, উত্তর প্রদেশ পুলিশের রিপোর্টে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশিত হলো। পুলিশের দাবি, এই নৃশংস অত্যাচারের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত সন্দীপের সঙ্গে মৃতা ওই তরুণীর পরিবারের ফোনের মাধ্যমে যোগাযোগ হতো।

পুলিশ আরো জানিয়েছে, ২০১৯ সালের অক্টোবর মাস থেকেই নির্যাতিতা তরুণীর ভাইয়ের মোবাইলের মাধ্যমে তাদের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ রাখত সন্দীপ। গত বছরের ১৩ই অক্টোবর থেকে মোট ১০৪ বার ফোনে যোগাযোগ হয়েছে তাদের। কল রেকর্ড চেক করে পুলিশ জানতে পেরেছে, নির্যাতিতার বাড়ি থেকে দুই কিলোমিটার দূরে চাঁদপা এলাকা থেকেই বেশির ভাগ কল করা হয়েছিল।

পুলিশের রিপোর্ট অনুযায়ী, ১৩ই অক্টোবর থেকেই ফোনের মাধ্যমে উভয়পক্ষের কথাবার্তা শুরু হয়। নির্যাতিতার পরিবারের তরফ থেকে সন্দীপের মোবাইলে অন্ততপক্ষে ৬২ বার ফোন করা হয়েছিল। উল্টোদিক থেকে ফোন এসেছিল ৪২ বার। অর্থাৎ, নির্যাতিতার পরিবারের সঙ্গে অভিযুক্তের নিয়মিত কথাবার্তা হতো বলেই দাবি করছে পুলিশ। আর অভিযুক্ত সন্দীপের কাছে নির্যাতিতার ভাইয়ের মোবাইল থেকেই সমস্ত ফোন করা হতো।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি হাথরাস গণধর্ষণকাণ্ডের তদন্ত সম্পন্ন করেছে বিশেষ তদন্তকারী দল তথা এসআইটি। গত সপ্তাহেই এই ঘটনা তদন্ত শুরু করেন এসআইটির তদন্ত আধিকারিকেরা। নির্যাতিতার পরিবারের বাড়ি গিয়ে তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে এবং ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে রিপোর্ট বানিয়েছেন এসআইটির আধিকারিকরা। বুধবার এসআইটির তরফ থেকেতদন্তের রিপোর্ট উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের কাছে পেশ করা হবে বলে জানা গেছে।