সঠিক সময়ে হয়েছে লকডাউন, তা না হলে হতে পারতো অনেক কিছুই, জানালো বিশেষজ্ঞরা

করোনা মোকাবিলার জন্য গোটা দেশ জুড়ে ১৭ মে পর্যন্ত লকডাউন বাড়িয়ে দিয়েছে কেন্দ্র সরকার। এখনও পর্যন্ত ভারতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৫০ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে। মৃত্যু হয়েছে ১৬০০ এর উপরে। মুম্বইয়ের ইন্টারন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর পপুলেশন সায়েন্সেস একটি রিপোর্টে জানিয়েছে, সঠিক সময়ে লকডাউন না হলে এখনও পর্যন্ত ভারতে প্রায় সাড়ে চার লক্ষ মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হতেন এবং মারা যেতেন ৩৩ হাজার মানুষ।

এই সংস্থার তরফ থেকে জানানো হয়েছে, একজন করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি গড়ে ৩ জন ব্যক্তির দেহে করোনা ভাইরাস ছড়াচ্ছে। তবে লকডাউনের ফলে সংক্রমণের হার অনেকটাই কমে গিয়ে। সংক্রমন যে হচ্ছেনা, তা নয়, সংক্রমণের হার অনেকটাই কম। এই সংস্থার প্রধান লক্ষ্মীকান্ত দ্বিবেদি জানিয়েছেন, লকডাউনের উদ্দেশ্য হল সংক্রমণের হার শূন্যে নামিয়ে আনা।

এখন একজন ব্যক্তির থেকে সংক্রমণের হার দাঁড়িয়ে আছে ১.১৬। লকডাউন ঠিক মতো পালন করা না হলে এই হার অনেকটাই বেড়ে যেতে পারে। সংস্থার তরফ থেকে জানানো হয়েছে, লকডাউনের ফলে ভারতে সংক্রমণের হার ৮ গুন কমেছে।
গোটা বিশ্বে এখনও পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৩৮ লক্ষ মানুষ, মৃত্যু হয়েছে ২ লক্ষের বেশি। করোনা মোকাবিলার জন্য বিশ্বের প্রায় সব দেশেই লকডাউন চলছে।

সব খবর সরাসরি পড়তে আমাদের WhatsApp  Telegram  Facebook Group যুক্ত হতে ক্লিক করুন