স্বাস্থ্যসাথীর কার্ড “নকল”, ফিরিয়ে দিচ্ছে হাসপাতাল, কারণ খুঁজতে বেরিয়ে এলো আসল তথ্য

রাজ্যবাসীকে চিকিৎসা খাতে সরকারি পরিষেবা দেওয়ার জন্য রাজ্য সরকারের তরফ থেকে সকলের জন্য চালু করা হয়েছে “স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্প”। ইতিমধ্যেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের মানুষ “দুয়ারে দুয়ারে সরকার” ক্যাম্পে আবেদন করার মাধ্যমে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড পেয়ে গিয়েছেন। তবে কার্ড পেয়েও মিলছে না স্বস্তি। হাসপাতাল থেকে বহু রোগীকেই বিনা চিকিৎসাতে ফিরে আসতে হচ্ছে। কিন্তু কেন এমনটা ঘটছে? রোগীরা জানাচ্ছেন, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে স্বাস্থ্য সাথী কার্ড জমা দেওয়া হলে তারা সেই কার্ড ডুপ্লিকেট বলে বাতিল করে দিচ্ছে। এর ফলে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে তাদের। সাধারণের এই অসুবিধার কথা জানতে পেরে অবশেষে স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফ থেকে আসল কারণটা জানানো হলো। স্বাস্থ্য দপ্তরের বয়ান অনুসারে, একবার স্বাস্থ্য সাথী কার্ড পেয়ে যাওয়ার পরেও যারা দ্বিতীয়বারের জন্য কার্ড বানাতে গিয়েছেন, সমস্যাটা তাদেরই হচ্ছে!

পরিবার ভেঙ্গে যাওয়ার দরুন নতুন করে কার্ড করাতে গেলেও এই সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন সাধারণ মানুষ, এমনটাই জানাচ্ছে স্বাস্থ্য দপ্তর। এই জন্যই স্বাস্থ্য দপ্তরের পরামর্শ, একবার স্বাস্থ্য সাথী কার্ড করানো থাকলে নতুন করে যেন কেউ আবেদন না করেন। তাহলে দ্বিতীয় কার্ডটি ডুপ্লিকেট হিসেবেই বিবেচিত হবে। এ ক্ষেত্রে নতুন করে কার্ড করতে গেলে অবশ্যই ভ্যালিডেশন করিয়ে নিতে হবে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, স্বাস্থ্য সাথী কার্ড বানানোর সময় আবেদনকারীর আধার কার্ডের মাধ্যমে তার নাম, পরিচয়, কার্ড নম্বর, ঠিকানা সহ যাবতীয় তথ্য যাচাই করছে দপ্তর। এক্ষেত্রে যাদের আগেই কার্ড করানো রয়েছে তারা যদি আবারও নতুন করে কার্ড বানাতে যান তাহলে একই আধার নম্বরে দ্বিতীয় কার্ড বানাতে গেলে স্বভাবতই দ্বিতীয় স্বাস্থ্য সাথী কার্ডটি বাতিল হয়ে যাচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রে আবার পরিবারে পেনশনভোগী অথবা সরকারি চাকরিরত সদস্য থাকা সত্ত্বেও কার্ডের জন্য আবেদন করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রেও সমস্যা হতে পারে বলে জানাচ্ছে রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর।