বাংলাদেশকে অনেক কম টাকায় ভ্যা’ক’সি’ন দিচ্ছে সেরাম, জেনে নিন ভারতের সাথে দামের পার্থক্য

বলা যেতে পারে প্রতীক্ষার অবসান, কারণ ইতিমধ্যে ভারতে দুটি ভ্যাকসিন এর অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সেই হিসেবে আগামী ১৬ ই জানুয়ারি প্রথম টিকা করনের দিন হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে। কিন্তু ভারতের বন্ধু উপসিদেস বাংলাদেশকেও অগ্রাধিকার দেওয়া হবে এই ভ্যাকসিনের এমনটাই জানানো হয়েছিল গত আগস্ট মাসে ভারতের তরফ থেকে। আর সেই হিসেবেই অক্সফোর্ড ও এস্ট্রোজেনিকার তৈরি তিন কোটি ডোজ পেতে চলেছে বাংলাদেশে। কিন্তু প্রতি ডোজের কেমন দাম রাখা হবে সেটা নিয়ে উঠেছিল প্রশ্ন, যা এবার সূত্রের মাধ্যমে কিছুটা হলেও পরিষ্কার হল। খবরটা শুনে প্রথমে বিশ্বাস না হলেও কয়েকটি বিশ্বস্ত সূত্রের মাধ্যমে স্পষ্ট জানতে পারা গেছে।

সেরাম ইনস্টিটিউট বাংলাদেশের কাছে প্রতি ডোজের দাম রাখবে ৪ মার্কিন ডলার, যা বাংলাদেশী মুদ্রায় ৩৪০ টাকা মাত্র। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একটি সূত্রের মাধ্যমে জানা গেছে, হয়তো বাংলাদেশ সরকার ঘরে তিন মার্কিন ডলার হিসেবে ভ্যাকসিন ক্রয় করবে। তবে সেরাম ইনস্টিটিউট ও বাংলাদেশ সরকারের তরফ থেকে ভ্যাকসিন সম্পর্কীয় কোনো খবর এখনো প্রকাশ্যে আসে নি। তবে মনে করা হচ্ছে খুব শিগগিরই এই নিয়ে কথা বলবে দুই পক্ষ।

মোটকথা সেরাম ইনস্টিটিউটের কাছ থেকে ভ্যাকসিন কেনার জন্য বাংলাদেশকে ভারতের তুলনায় ৪৭ শতাংশ বেশি অর্থ খরচ করতে হবে। ভারতে প্রতি ডোজের দাম সরকারকে দিতে হবে ২০০ টাকা করে, ইতিমধ্যেই ভারত সরকারের সাথে সেরাম ইনস্টিটিউটের ১১ মিলিয়ন ডোজ বিক্রির চুক্তিপত্র হয়েছে। যার মোট অর্থ দাঁড়াবে ২.৭২ মার্কিন ডলার। এবার বাংলাদেশের কথা বলতে হলে জানা গেছে,আগামী ফেব্রুয়ারি মাস থেকে শুরু হবে সেখানে টিকা করন প্রক্রিয়া। আপাতত প্রতিমাসে ৫০ লক্ষ ভ্যাকসিন পাঠানো হবে বাংলাদেশ টানা ছয় মাস।যা জানুয়ারি মাসের ২১ থেকে ২৫তারিখের মধ্যেই প্রথম লট পৌঁছে যাবে বাংলাদেশ।