৪ কোটি মানুষের থেকে ৮৬ হাজার কোটি টাকা নিয়েছিল সাহারা, প্রকাশ্যে এল আরও তথ্য

ফাইল ছবি

সংবাদ মাধ্যমের তরফ থেকে সাহারা সম্পর্কে জানা গেল এক বিশাল তথ্য। ২০১২ ও ২০১৪ সালের কথা সেবার সুপ্রিম কোর্ট সাহারার দুটি সংস্হাকে তলব করেছিল আর সেখানেই সাহারার প্রধান সুব্রত রায়কে গ্রেফতার করা হয়েছিল। আর তারপরেই সংস্হার তরফ থেকে কয়েকটি সমবায় সমিতি গড়ে তোলা হয়েছিল, যেখানে ৪০০০ কোটি গ্রাহকদের কাছ থেকে ৮৬ হাজার ৬৭৩ কোটি টাকা নেওয়া হয়।

আসলে সেবার ৩ টির মতো সমবায় সমিতি গড়ে তোলা হয়েছে, আর তার ঠিক ২ বছর আগেই ২০১০ সালেও একটি সমিতি গড়ে তোলা হয়েছে যেখানে দেখা যাচ্ছে টাকার হিসেবে গন্ডগোল রয়েছে। জমানো টাকায় যে কিছুটা হলেও অনিয়ম পাওয়া যাচ্ছে সেই নিয়ে তদন্তের আহ্বান জানানো হয়েছে। সাথে বলা হয়েছে, এই সময়ে আমানত কারীদের টাকা বিশাল ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

এরপরে আরও জানা গেছে, আসলে সংগৃহীত অর্থের ৬২ হাজার ৬৪৩ কোটি টাকা লোনাভলাতে যে আম্বি উপত্যকা রয়েছে সেখানে বিনিয়োগ করা হয়েছিল। যার ফলেই ২০১৭ সালে যেটা সুপ্রিম কোর্টের অধিনেই ছিল, যেটা সাহারার আমানতকারীদের সম্পত্তি নিলাম করে বেশ কয়েকটি চেষ্টা ব্যর্থ হলেও ২০১৯ সালে তা মুক্তি পেয়েছিল। ইতিমধ্যেই সাহারার জালিয়াতি তদন্ত অফিস দ্বারা তদন্তের জন্য কর্পোরেট বিষয়ক মন্ত্রককে চিঠি পাঠানো হয়েছিল।