বিশ্বের পঞ্চম নামিদামি সংস্থা ও ব্র্যান্ডের তালিকায় রিলায়েন্স জিও

ফের রিলায়েন্স জিওর মুকুটে যোগ হল এক নতুন পালক।The Brand Finance’s Global 500 য্যাঙ্কিংয়ে রিলায়েন্স জিওর স্থান পঞ্চমে। বিশ্বের নামিদামি বিশেষ সংস্থা ও ব্র্যান্ডের তালিকায় নাম লিখিয়েছে রিলায়েন্স জিও, যা সত্যিই গর্বের। তাছাড়া বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্র্যান্ড ভ্যালুয়েশন কনসালটেন্সির দিক থেকেও গ্লোবাল রেঙ্কিং এ নতুন জায়গা তৈরি করেছে মুকেশ আম্বানির সংস্থা রিলায়েন্স জিও। বিশ্বের অন্যতম টেলিকম সংস্থা গুলির মধ্যে সবার আগে রিলায়েন্স জিও, এই রিপোর্টে সর্বাধিক মূল্যবান ও শক্তিশালী ব্র্যান্ড হিসেবে বিশ্বের মধ্যে সবার আগে রয়েছে উইচ্যাট।

জিও সম্পর্কে বলা হয়েছে, 2016 সালে তৈরি হয়েছে সংস্থা, আর তারপরেই ভারতের বুকে টেলিকম জগতে নতুন বিপ্লব এনে দিয়েছে রিলায়েন্স জিও। যার ফলে খুব দ্রুত 400 মিলিয়ন ইউজার কে নিজের পরিবারের সদস্য করে ফেলেছে তারা। বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম মোবাইল নেটওয়ার্ক হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে রিলাইন্স জিও। একটা সময় রিলায়েন্স জিও তাদের গ্রাহকদের কম দামে ডাটা থেকে শুরু করে সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা প্রদান করেছেন যা এখনো অব্যাহত।

ব্র্যান্ড ভ্যালুয়েশন কনসালটেন্সি ব্র্যান্ড ফিনান্স, রিলায়েন্স জিওর উত্থানের কথা ব্যাখ্যা করে বলেছেন, খুবই কম মূল্যে রিলায়েন্স জিও তাদের গ্রাহকদের হাতে তুলে দিয়েছে ফোর জি ডেটা। ভারতীয়দের ইন্টারনেট ব্যবহার করার এক নতুন দিক দেখিয়েছে রিলায়েন্স জিও, যার ফলে খুবই দ্রুত টেলিকম সংস্থার এক নতুন বিপ্লবের সৃষ্টি করেছে তারা। তবে শুধু এই কারণেই নয়, একটি সংস্থার গ্রোথ নির্ভর করে স্টেকহোল্ডার ইকুইটি, মার্কেটিংয়ের বিনিয়োগের মেট্রিক্স, ও বিজনেস পারফরমেন্সের উপর।

যেখানে স্টেকহোল্ডার ইকুইটি অরিজিনাল এর মার্কেট রিসার্চ এর ডাটা সংগ্রহ করে দেখা গেছে 30 টি দেশের মধ্যে কুড়ি টি সেক্টরের মূল্যায়ন অধিক। ব্র্যান্ড ফিনান্স সংস্থার তরফ থেকে জানানো হয়েছে, খ্যাতি, মুখের কথায় প্রভাব, উদ্ভাবনী শক্তি, কাস্টোমার সার্ভিস এবং টাকার মূল্য এই সমস্ত কিছুর দাঁড়া অন্যান্য টেলিকম সংস্থাকে পিছনে ফেলে দিয়েছে রিলায়েন্স জিও।