একসময় এক পাদ্রী এই মহিলার নাম রেখেছিলেন “ক’রোনা”, সেই নাম এখন মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে

অনেক সময় একই নাম হয়ে যাবার জন্য, অথবা কোন সময় নাম পছন্দ না হবার জন্য আমরা অনেক সময় বাবা মাকে বলে থাকি, কেন আমাকে এমন নাম দিলে? অনেকে আবার বড় হয়ে নিজের নাম পাল্টানোর জন্য কোর্টের কাছে আবেদন করেন। তবে এবার কোন শিশু নয়,নিজের নাম নিয়ে রীতিমতো ক্ষোভ জানিয়েছেন একজন ৩৪ বছরের মহিলা। তার দুই সন্তান হয়ে গেছে। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠছে, এতদিন পর কি হল যে নাম নিয়ে এত ক্ষোভ তার? তার নাম এখন প্রায় লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যুর কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে, হ্যাঁ, ঠিকই বুঝেছেন, তার নাম হলো করোনা।

করণা জানিয়েছেন যে, এই নামটি তার বাবা-মা দেননি। ব্যাপ্টিজম এসময় চার্চের একজন পাদ্রী তার নাম রেখেছিলেন। তিনি জানেন না যে কোথা থেকে পাদ্রীর মাথা এই রকম একটি নাম এসেছিল। কিন্তু তিনি যতটুকু জানেন তা হল, দ্বিতীয় দশকে একজন ক্যাথলিক ধর্মযাজক ছিলেন। তার নাম ছিল করোনা। সেখান থেকেই তার নাম দেওয়া হয়।

তবে এই নাম দেবার জন্য পাদ্রীর ওপর তার কোনো রাগ নেই। তিনি কি কখনো ঘুণাক্ষরেও জানতেন যে, বিংশ শতকে এই নাম সকলের কাছে অভিশপ্ত হয়ে উঠবে। তবে এই ভদ্রমহিলাকে নিয়ে হাসি ঠাট্টা করতে ও ছাড়ছেন না কেউ। তবে একটু কান পাতলেই শোনা যাবে যে,মহামারীর মধ্যে জন্ম নিয়েছে এমন অনেক শিশুর নামকরণ রাখা হয়েছে করণা। এমনকি একটি জমজ শিশুদের নাম রাখা হয়েছে করোনা এবং কভিদ।