দ্বিতীয় দিনে পড়লো ট্রাক ধর্মঘট, বাড়ছে নিত্য সামগ্রীর দাম, আরো বাড়ার আশঙ্কা

গতকাল সোমবার থেকে ট্রাক ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে বাংলায়। আর সেই ধর্মঘটের দ্বিতীয় দিন। মোট ৭২ ঘন্টার ট্রাক ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছে। যার ফলেই কিনা এবার নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর দাম আকাশ ছোঁয়া হতে চলেছে। গতকাল সোমবারের ট্রাক ধর্মঘটের ডাক দেওয়ার পরেই বিভিন্ন কিছু জেলায় প্রভাব পরে গেছে, এবার আজ মঙ্গলবার সেইভাবেই ধর্মঘট বজায় থাকবে সারা রাজ্যে, আর তার ফলেই যে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম আকাশ ছোঁয়া হবেই সেটা আন্দাজ করা যাচ্ছে। ফেডারেশন অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্রাক অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষ থেকেই ডাকা হয়েছে এই ধর্মঘট বিভিন্ন কিছু কারণের জন্য। এই ধর্মঘট নিয়ে এই এসোসিয়েশনের সভাপতি সুভাষ বসু জানায়, আসলে এক্সেল লোড চালু করার দাবিতে এই ধর্মঘট, যেটা সব রাজ্যেই চালু হয়ে গেছে কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ সরকার এখনও চালু করে নি।

এই ধর্মঘটের ফলে দেখা যাচ্ছে অন্য রাজ্যের ট্রাক যেমন এই রাজ্যে প্রবেশ করতে পারবে না, তেমন ভাবে এই রাজ্যের ট্রাক অন্য রাজ্যে যাবে না। মোট ৬ লক্ষ ট্রাক এই ধর্মঘটে যোগ দিয়েছে।স্বাভাবিকভাবেই ট্রাক ধর্মঘটের কারণে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম হয়ে যাবে এখন আকাশ ছোঁয়া, পুজোর আগে মানুষের নাভিশ্বাস উঠবে বলেই জানিয়েছে। পরিবহণ দফতরের ডিরেক্টর বি দত্ত জানিয়েছেন, আসলে দুই দিনাজপুর, জলপাইগুড়ি,নদীয়া, পশ্চিম মেদিনীপুর সব জায়গায় একটা আংশিক প্রভাব দেখা গেছে। এখনও কোনো জেলাগুলোতে প্রভাব পরে নি।

এদিকে ফেডারেশন অফ ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্রাক অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশনের তরফ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লেখা হয়েছে যাতে শুল্ক প্রত্যাহার করে নেয়। সাথে রয়েছে তাদের আরও কিছু দাবি দাওয়া। তার মধ্যে ট্যাগ পার্টি, লোডিং পয়েন্ট থেকে ওভারলোড বন্ধ করতে হবে, এম ভি আই ভিয়েলারো , বালি–পাথর মাফিয়ার দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে, থানায় থানায় মাসিক পুলিশকে টাকা দেওয়া এইসবকে রদ করতেই হবে।শেষে তারা জানিয়েছেন আসলে অকারণেই মোটর ভেহিকলসের হয়রানি, সেটাও বন্ধ করতে হবে।।