জুতো ধার করে অলিম্পিকের প্রশিক্ষণ, কানে খবর পৌঁছতেই দুস্থ খেলোয়াড়ের পাশে দাঁড়ালেন সোনু সুদ

যেখানে অন্যান্য অভিনেতারা নিজেদের ঘর বন্দি করে রেখেছেন,কি সেখানে ঝাঁ-চকচকে স্টার সুলভ জায়গা থেকে সরে গিয়ে মানব সেবায় নিয়োজিত হয়েছিলেন সনু সুদ। তিনি চলতি বছরে বহু মানুষের কাছে “ঈশ্বরের দূত” হয়ে এসেছেন।তিনি না থাকলে হয়তো এ বছরে বহু মানুষ তাদের পরিবারের মুখ দেখতে পেত না। সনু সুদ কে ভোলেননি কেউ, কখনো তার নামে রেখেছেন সন্তানের নাম, কখনো বা গ্রামে ফিরে গিয়ে তার নামে রেখেছেন দোকানের নাম। পরিযায়ী শ্রমিকদের পাশে দাঁড়ানো শুধু নয়, শিশু থেকে বয়স্ক সকলেরই পাশে দাঁড়িয়েছেন এই অভিনেতা।

লকডাউনে এবার যোগ্য অথচ দুখস্থ খেলোয়ারদের পাশে দাঁড়ালেন এই অভিনেতা।যে খেলোয়াড়রা অভাবের তাড়নায় অলিম্পিকের জন্য প্রস্তুতি নেবার চিন্তা ছেড়ে দিয়েছেন, তাদের পাশে ঢাল হয়ে দাঁড়ালেন সনু সুদ।এমনই একজন খেলোয়াড়ের নাম হল মনোজ জাঙ্গি। তিনি দেশের হয়ে অলিম্পিকে মেডেল দেখার স্বপ্ন দেখেন। কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতি একেবারেই অন্যরকম।দু’বেলা দু’মুঠো খাবার জোগাড় করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাকে। পেটে খিদে নিয়ে সেই পরিবারের ছেলে কিনা দেশের আন্তর্জাতিক ময়দানে দৌড়ানো স্বপ্ন দেখে, এটা ভাবাই বাতুলতা। তবু এই অভাব-অনটনের মাঝে খানে কোনমতে চলে তার প্রশিক্ষণ। একটাই স্বপ্ন, দেশ বিদেশ থেকে আসা প্রতিযোগিতার পিছনে ফেলে অনেকটাই এগিয়ে যেতে হবে।

কিন্তু দৌড়ানোর জন্য চাই ভালো জুতো। কিন্তু অভাবের তাড়নায় ব্র্যান্ডের জুতো কেনার সামর্থ্য নেই তার। এদিকে এই প্রতিভাবান ছেলের কথা ইতিমধ্যেই সংবাদমাধ্যমের পাতায় ঠাঁই পেয়েছে।দারিদ্র্যকে সঙ্গী করে কিভাবে প্রতিনিয়ত অন্যের জুতো ধার করে প্রশিক্ষণ নিতে মাঠে দৌড়াচ্ছেন সেকথা জ্বলজ্বল করে ছাপা হয়েছে প্রতিবেদনের শিরোনাম।ঠিক এই কারণেই নিজের জন্য এক জোড়া জুতো চেয়ে অবশেষে ভগবানসম সনু সুদ কে টুইট করেছেন মনোজ। সেটি চোখে পড়তেই তৎপরতার সঙ্গে তার ঠিকানায় জুতো পাঠানোর ব্যবস্থা করেন অভিনেতা।

সনু সুদ চলতি বছরের প্রথম দিক থেকে যেভাবে মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন, সেযাত্রা এখনো পর্যন্ত শেষ হয়নি। কিছুদিন আগে একজন কৃষক পরিবারের মেয়ের স্বপ্ন ছিল সিভিল সার্ভিস পরীক্ষা দেবার।কিন্তু চরম দুর্দশাতে বই কেনার টাকা না থাকায় অভিনেতার কাছে সাহায্য চেয়ে পাঠিয়েছিলেন তার দাদা। স্বভাবসিদ্ধভাবেই তাকে নিরাশ করেননি সনু।আশ্বস্ত করেছেন যে মঙ্গলবার তার বোনের কাছে পৌঁছে যাবে সিভিল সার্ভিস পরীক্ষার সমস্ত বই।