বিদ্যুতে ব্যাপক ভর্তুকি, মজুরি দৈনিক ৭০০ টাকা, বামেদের নির্বাচনী ইস্তেহার

বাকি সমস্ত রাজনৈতিক দলের পাশে এবারের একুশে বিধানসভা নির্বাচনে একেবারে কোমর বেঁধে নামছে বামেরা। ইতিমধ্যেই সূত্রের মাধ্যমে জানা গেছে, খুব তাড়াতাড়ি বিধানসভা নির্বাচন উপলক্ষে ইস্তেহার প্রকাশ করবে আলিমুদ্দিন। মোটকথা এটা স্পষ্ট যে, যদি তৃণমূলের জায়গায় বামেরা ক্ষমতায় আসে বাংলায় তাহলে তারাও যে তৃণমূলের দেখানো পথেই হাঁটবে সেটা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে তাদের এই ইস্তেহারের দ্বারা। স্বাভাবিকভাবে রাজ্যের বিরুদ্ধে বাম নেতৃত্ব বরাবর প্রতিবাদী, কিন্তু মানুষ যদি তাদের শাসক হিসেবে বেছে নেয় তাহলে যে তারাও তৃণমূলের মতই দাবিদাওয়া নিয়ে কেন্দ্রের কাছে উপস্থিত হবে , সেটা স্পষ্ট।

২০০ ইউনিট পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিলে সরকারি ভর্তুকি দেওয়া হবে।

সমস্ত রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি দেওয়া হবে।

ত্রিস্তর পঞ্চায়েত ব্যবস্থায় গণতন্ত্র ফেরানো হবে।

নারী নির্যাতন, গার্হস্থ‍্য প্রতিরোধে শহরে ওয়ার্ড বা বরোতে এবং গ্রাম বাংলার ব্লক স্তরে বিশেষ সহায়তা কেন্দ্র গড়ে তোলা হবে।

ভূমিসংস্কারে জমি পাওয়া গরিব কৃষক যাঁরা উচ্ছেদ হয়েছেন, তাদের পুনঃপ্রতিষ্ঠা করা হবে।

শ্রমিকদের নূন্যতম মজুরি দৈনিক ৭০০ টাকা করা হবে।

এক বছরের মধ্যে সরকারি আধা সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ করা হবে।

কেন্দ্রের সংগৃহিত রাজস্বের ৫০ শতাংশ রাজ্যকে দিতে হবে।

বাতিল করা হবে রাজ্যের এপিএমসি আইন। কেন্দ্রের কৃষি আইনও রাজ্যে কার্যকর হবে না।

এনআরসি, এনপিআর বা সিএএ-র মতো বৈষম্যমূলক নাগরিকত্ব ধারণা রাজ্যে কার্যকর হবে না।

কৃষকের ফসলের দেড়গুণ দামের নিশ্চয়তা দেওয়া হয়েছে।