শ্রমিক স্পেশাল ট্রেনে বাড়ি ফিরছে কেরলের শ্রমিকেরা, খাবার দিচ্ছে কেরল সরকার

দেশজুড়ে লকডাউন চলছে। তাই এই পরিস্থিতিতে দেশের অবস্থা অত্যন্ত কঠিন। দেশের বিভিন্ন জায়গায় আটকে রয়েছেন পরিযায়ী শ্রমিকরা। বিপদে পড়েছেন তাঁরা। পরিবহণ ব্যবস্থা এতদিন বন্ধ ছিল। ২০ মে তারিখের পর থেকে পরিবহণ ব্যবস্থা আবারও স্বাভাবিক হচ্ছে আস্তে আস্তে। যদিও এখনও বাকি ১৩ দিন। কারণ চলছে দেশজুড়ে তৃতীয় দফার লকডাউন। এই অবস্থায় ঘরমুখী শ্রমিকরা নিজেদের বাড়িতে ফিরছে বিভিন্ন রাজ্য থেকে ট্রেনে উঠেছেন।

বিহার, থেকে ওড়িশা বা উত্তরপ্রদেশ থেকে যে সমস্ত শ্রমিকরা ট্রেনে করে ফিরছেন তাঁদের হাতে খাবার ও পানীয় তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল কেরল সরকার। রবিবার রাতেই তিরুবুনন্তপুরম থেকে সাত হাজার শ্রমিক ফিরবেন নিজেদের ঘরে। তাই তো তাঁদের হাতে আইআরসিটিসির মাধ্যমে খাবার পৌঁছে দেবে কেরল সরকার। এমনিতেই প্রতিটি স্টেশনে করোনা ভাইরাসের জন্য যাতে কোনো ভাবেই সংক্রমন না ছড়ায় তার জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

তাই প্রতিটি রেলস্টেশনে মোতায়েন করা হয়েছে উচ্চপদস্থ আধিকারিকদের। এবং শ্রমিকদের ট্রেনে ওঠার সময় ছ ফুট দূরত্ব বজায় রাখতে হচ্ছে।প্রসঙ্গত, প্রায় একমাসের বেশি সময় ধরে ভিনরাজ্যের শ্রমিকরা আটকে রয়েছেন কর্মক্ষেত্রে। কিন্তু কয়েকদিন আগে কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রকের তরফ থেকে বিশেষ ট্রেন চালানোর কথা জানানো হয়েছে। সেই ট্রেনেতেই নিজেদের বাড়ি ফিরতে চাইছেন শ্রমিকরা। চেন্নাই থেকে প্রথম ট্রেনটি রওনা দেয় ঝাড়খণ্ডের উদ্দেশে। কেরলের এর্নাকুলাম থেকে ওড়িশার ভুবনেশ্বরের উদ্দেশে রওনা দেয় দ্বিতীয় ট্রেনটি।