“দুটো ভেড়া কমে গেলে কিছু যায় আসে না”, লক্ষ্মীর পদত্যাগে অনুব্রতর কটাক্ষ

আজই তৃণমূল দলের মন্ত্রিত্ব পদ ছেড়েছেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের প্রাক্তন সদস্য লক্ষ্মীরতন শুক্লা। ক্রিকেট জগতে পুনরায় ফিরে যাওয়ার লক্ষ্যেই তার এই প্রত্যাবর্তন বলে জানিয়েছেন হাওড়ায় তৃণমূলের জেলা সভাপতি। তবে মন্ত্রী পদ ছাড়লেও বিধায়ক পদ থেকে অবশ্য ইস্তফা দেননি তিনি। এদিকে আসন্ন একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে দলবদলের মরসুমে লক্ষ্মীরতন শুক্লার ইস্তফা কিন্তু বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

তবে, লক্ষ্মীরতন শুক্লা হোন বা দলের অন্য কোনো হেভিওয়েট নেতা, দলত্যাগ যারা করছেন তাদের কার্যত ভেড়ার পালের মধ্যে “দুটো ভেড়া” বলেই মনে করছেন বীরভূমে তৃণমূলের জেলা সভাপতি তথা তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতা অনুব্রত মণ্ডল। তৃণমূলের অন্যান্য নেতাকর্মীদের মতো তিনিও কার্যত দলত্যাগীদের নগণ্য হিসেবেই বিবেচনা করেন। তাই এ প্রসঙ্গে তাকে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি সাফ জানিয়ে দেন, দলত্যাগীদের জন্য দলের বিশেষ কোনো ক্ষতি হবে না।

একটি উদাহরণের মাধ্যমে তিনি বিষয়টি বুঝিয়ে দিয়েছেন। অনুব্রত মণ্ডলের বক্তব্য অনুসারে, গ্রামে বড় বড় চাষির ঘরে ভেড়ার পাল থাকে। তবে কোনো পরব এলে দেখা যায় ভেড়ার পাল থেকে বেশকিছু সংখ্যক ভেড়া কমে গিয়েছে। কিন্তু তা বলে ভেড়ার মালিকের কি কোনো ক্ষতি হয়? পাল্টা প্রশ্ন তুললেন অনুব্রত মণ্ডল।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার মুরারই-১ নম্বর ব্লকের পলসা কারবালার মাঠে জনসভা শেষ করার পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন অনুব্রত মণ্ডল। সেখানেই লক্ষ্মীরতন শুক্লার পদত্যাগ প্রসঙ্গে তার মনোভাব জানতে চাওয়া হলে তিনি এমনই উত্তর দেন। তার এই জবাবের মাধ্যমে তিনি কার্যত বুঝিয়ে দিতে চাইলেন, একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে দল থেকে কে বা কারা পদত্যাগ করছেন তাতে তৃণমূলের কিছু এসে যায় না। বিষয়টা অনেকটা ওই ভেড়ার পালের মতোই।