সীমান্তে পাকিস্তানের আগ্রাসন, পাক সেনার গুলির যোগ্য জবাব দিচ্ছে ভারতীয় সেনা

পূর্ব লাদাখের সাথে সাথে কাশ্মীর উপত্যকাও একেবারে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। সেখানে পাকিস্তান সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করেছে। আর সেই কারণেই দুই দেশের সেনার মধ্যেই চলছে গুলির লড়াই। পাকিস্তান ভারতের ওপরে হামলা করলেও, ভারত তার উপযুক্ত জবাব দিয়েছে। পাকিস্তান তাদের তরফ থেকে একের পর এক মর্টার শেল বর্ষণ শুরু করেছে। গতকাল বুধবার রাত থেকেই এই সংঘর্ষবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করেছে পাকিস্তান।

এই ২০২০ সালের করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই ২০০০ বারের বেশীবার এই চুক্তি লঙ্ঘন করেছে তারা। গতকাল ভোর রাত থেকে কৃষ্ণ ঘাটি সেক্টর বরাবর এই যুদ্ধবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করে, আর সেদিকে উদ্দেশ্য করেই গুলি বর্ষণ শুরু করে। এর ফলে একজন জওয়ান শহীদ হয়েছে ও সাথে একজন জওয়ান আহত হয়েছে, তাকে রাজৌরি সেনা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে ভারতও যে চুপ করে আছে তা নয়, একেবারে মোক্ষম জবাব দিয়েছে তাদের।

মর্টার শেলিং থেকে শুরু করে গোলাবারুদ সব ধরনের কিছুই ব্যবহার করে পাকিস্তানিরা। একেবারে নওগাম সেক্টরের ওপরে গোলা বর্ষণ শুরু করে তারা। আর্টিলারি বন্দুক ব্যবহার করে গুলি চালায় তারা। এই ধরনের হামলা উত্তেজনা হামেশাই চলছে, কিন্তু প্রশ্ন এখানে নয়, কারণ এর প্রেছনে পাকিস্তানের অন্য কোনো চাল আছে কিনা সেটা ক্ষতিয়ে দেখা হছে। এমনও হতে পারে যে এই সঙ্ঘর্ষ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘনের আড়ালে তারা জঙ্গীদের অনুপ্রবেশ ঘটাচ্ছে ভারতে। গোয়েন্দা মারফত জানা যাচ্ছে এই সব খবর।

বিশেষ করে পাকিস্তানিরা উপত্যকার গ্রাম গুলোকে লক্ষ্য করে গোলাগুলি চালায় এর ফলে সেনা জওয়ান্দের সাথে আহত হয় এমনকি নিহত হয় সাধারণ মানুষ। এই নিয়ে রিপোর্ট সামনে এসেছে আগের বার তারা এই চুক্তি লঙ্ঘন করেছে অগনিতভাবে। এবার মাত্র ৮ মাসের মধ্যেই ২ হাজার থেকে ৩ হাজারের মতো। এই সেপ্টেম্বর মাসেই প্রায় ৫০ বার চুক্তি লঙ্ঘন করেছে তারা। এখন প্রশ্ন একটাই জঙ্গী অনুপ্রবেশ করাচ্ছে কিনা পাকিস্তান, সেটাই আরও ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে সীমান্তে।