সীমান্তে উত্তেজনা অব্যাহত, মঙ্গলবার ফের কমান্ডার স্তরে ভারত-চিন বৈঠক

এবার ফের মঙ্গলবার তৃতীয় দফায় ভারত চিন বৈঠক হতে চলেছে লাদাখের চূসুলে। লাদাখ নিয়ে দুই দেশের মধ্যে এখন পারদ চড়ছে। কেউ তাদের জায়গা থেকে সড়ে আসতে চাইছে না। সবাই সীমান্তে সামরিক দিক থেকে মজবুত হচ্ছে। ভারত সব ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছে। আর এটা দেখেই অনেকে মনে করছে যে ভারত যুদ্ধের জন্য তৈরী। কিন্তু তাও ভারত ও চিন কথাবার্তা কোনোমতেই ছেড়ে দিতে চাইছে না। এর আগে দুই দফায় বৈঠক হয়েছে নয়া দিল্লি ও বেজিং এর। সেখানে তেমন একটা কাজ না হওয়ায় ফের আগামীকাল ১০.৩০ টার দিকে দুই দেশের মধ্যে হতে চলেছে সামরিক ও কূটনৈতিক বৈঠক।

আগের দুটি বৈঠক হয়েছে মলডোতে। এবার থর্ড কর্প কমান্ডার স্তরে বৈঠক হতে চলেছে আগামীকাল চূশূলে। এবারের বৈঠকে কি কথা হবে, এবারের বৈঠকে কি শান্তির বার্তা দেওয়া হবে, এমন সব প্রশ্ন উঠছে। তবে সূত্রের মাধ্যমে জানা গেছে হয়তো ডিজএনগেজমেন্ট করার কথা বার্তা বলা হতে পারে।

এদিকে গত বৈঠকে দুই দেশের জেনারেলের মধ্যে কথোপকথন হয়েছিল সেনা সড়ানো নিয়ে, সাথে বর্তমান লাদাখের অবস্হা নিয়ে। যাতে কোনোভাবেই পরিস্হিতি খারাপের দিকে না যায় ,সেই জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে একে অপরকে। যেভাবেই হোক সেনা সড়ানো নিয়ে দুই দেশের পদক্ষেপ খুবই জরুরি। আর এটা নিয়েই যে আগামীকাল বৈঠকে আলোচনা হবে সেটা স্পষ্ট।দেখা যাচ্ছে চিনের দাপাদাপি অনেকটাই বেড়েছে সীমান্তে। আর এটা কখনোই যে সহ্য করবে না ভারত সেটা বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন।

চিনের সাথে ভারতের দ্বিতীয় বৈঠকে চিনকে ভারতের তরফ থেকে বলা হয়েছিল, তারা যেনো সেনার অবস্হানে আগের মতো করে নেয়। কিন্তু এটাতে একমত নয় চিন। তারা জানিয়েছে সেনা সড়ানো হবে না। কিন্তু ভারতও ছেড়ে দেওয়ার পাত্র না। তারাও অনড়। আর এরপরেই আরও উত্তাপ বৃদ্ধি পায় সীমান্তে। কিন্তু যত কিছুই হয়ে যাক। কোনো দেশই যে কথাবার্তা ছাড়তে চাইছে না, সেটা আগামিকালের বৈঠকের কথা শুনেই বোঝা যাচ্ছে। এবার গোটা দেশ এখন সেই দিকেই তাকিয়ে।