রান্নাঘরে যদি এই কয়েকটি জিনিস রেখে থাকেন, তবে এখনই ফেলে দিন বাইরে

বাড়ির মধ্যে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ স্থান হল রান্নাঘর। আমাদের বেশকিছু ভুল-ভ্রান্তির জন্য রান্না করে বাসা বাদে ক্ষতিকারক বেশকিছু জীবনী যা আমাদের স্বাস্থ্যকে ক্ষতির সম্মুখীন করে। চলুন জেনে নেওয়া যাক কি সেই আমাদের ভুল ভ্রান্তিগুলো–

১) আমরা অনেক সময় রান্নাঘরের তেলের বোতল হিসেবে প্লাস্টিকের তৈরি বোতল ব্যবহার করি। প্লাস্টিকের বোতলে তেল রাখে সে তেল দুই মাসের বেশি ব্যবহার করা যাবে না কারণ দুই মাসের বেশি তেল ব্যবহার করলে তাতে ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া বাসা বাঁধে। যা আমাদের স্বাস্থ্যের পক্ষে খুবই ক্ষতিকর।

২) অনেক সময় রান্নাঘর এ খাবার বা পানীয় জিনিস খোলা অবস্থায় রাখা হয়। অজান্তেই অনেক সময় ওই খোলা খাবারে কোন জীব জন্তু যেমন টিকটিকি মুখ দিতে পারে। এর ফলে আমাদের শরীরে নানা সমস্যা দেখা দেয় তাই রান্নাঘরে খাবার জিনিস কখনই খোলা রাখা উচিত নয়।

৩) ওয়াইনের বোতল খোলা অবস্থায় কখনোই রান্নাঘরে রাখবেন না। দুদিন পর থেকেই এই ওয়াইনের বোতল এবং ফাংগাস জন্মায়। যদি কখনো ওয়াইনের বোতল খোলা অবস্থায় রাখেন তাহলে দেখবে দুদিন পর ওই বোতলের মধ্যে থেকে দুর্গন্ধ বের হচ্ছে এবং বোতলের মধ্যে ব্রাউন রং এর কিছু জিনিস ভেসে থাকছে।

৪) রান্নাঘরে জলের বোতলের মুখের ঢাকনা কখনো আলগা করে রাখা উচিত নয়।

৫) রান্নার জন্য প্রয়োজনীয় মশলা বেশিদিন খোলা অবস্থায় বাইরে ফেলে রাখবেন না তাহলে ওই মশলার গন্ধ নষ্ট হয়ে যায়।

৬) জি স্পঞ্জ দিয়ে আমরা বাসন ধুয়ে ঐ স্পঞ্জটি সপ্তাহে অন্তত একবার পাল্টে ফেলুন। 2050 এর মধ্যে সাবান লেগে থাকে তাই কয়েকদিন পরেই তার মধ্যে ব্যাকটেরিয়া জন্মায়। ওই ব্যাকটেরিয়া বাসনের মাধ্যমে কিভাবে আপনার পেটের মধ্যে প্রবেশ করবে তা আপনি বুঝতে পারবেন না।

৭) অনেক সময় বিয়ারের ক্যান ফ্রিজের মধ্যে রাখা হয়। কিন্তু সেটি একমাসের বেশি রাখা উচিত নয় কারণ এক মাসের পর থেকেই ওই বিয়ার এর মধ্যে ফারমেন্টেশন শুরু হয়ে যায়।

৮) ফ্রিজে যখন জ্যাম বা জেলি বোতল রাখেন তখন তার মুখ শক্ত করে বন্ধ করুন। জ্যাম বা জেলির বোতলের-মুখ যদি শক্ত করে বন্ধ না করেন তাহলে খেলে শরীরে বিষক্রিয়ার প্রভাব পড়ে।