দুর্নীতিকারীদের ঠাঁই নেই দলে, মানবসেবাই হল তৃণমূলের নীতি: ফিরহাদ

মানবসেবাই হল তৃণমূলের নীতি

যেখানে করোনা মোকাবিলায় এক সঙ্গে লড়তে হবে রাজ্য এবং কেন্দ্রকে, সেখানে সমানে রাজনীতি করে যাচ্ছে এই দুই দল! কোন না কোনভাবে কেন্দ্রকে কথা শোনাতে ছাড়ছে না রাজ্য, রাজ্যকেও ক্রমাগত একের পর এক বাক্যবাণে কোণঠাসা করছে কেন্দ্র। রবিবার কলকাতায় একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়ে রাজ্যের পুরো এবং নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেছেন,”তৃণমূলের মূলনীতি হল মানব সেবা, কোনরকম দুর্নীতির স্থান সেখানে নেই”।

এমনটা বলে আবারো কেন্দ্রের দিকে অভিযোগের আঙ্গুল তুলেছেন কলকাতা পুরসভার চেয়ারম্যান। বাংলা ৫৩ হাজার কোটি টাকা কেন্দ্র রেখেছে বলে অভিযোগ তুলেছেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। তার বক্তব্য অনুযায়ী, কেন্দ্রীয় সরকার বাংলা বিরোধী। তারা কিছুতেই পশ্চিমবঙ্গ কে মাথা তুলে দাঁড়াতে দিচ্ছে না। তাই পশ্চিমবঙ্গের প্রাপ্য ৫৩ হাজার কোটি টাকা কেন্দ্র দিচ্ছে না।

এর আগেও ঘূর্ণিঝড় অম্ফান ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রাণ বিলি নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল।একাধিক ক্ষেত্রে শাসক দলের নেতাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি বা স্বজনপোষণের অভিযোগ উঠেছে বারবার। রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় যারা প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের বঞ্চিত করে রাখা হচ্ছে বলে অভিযোগ। রাজ্যের অভিযোগ অনুযায়ী,কেন্দ্র ক্ষতিগ্রস্ত জেলার যে লিস্ট বানিয়ে ছিল, তাতে পশ্চিমবঙ্গের দুই ২৪ পরগনা এবং হুগলি জেলার নাম নেই। তাতে আরও ক্ষিপ্ত হয়েছে রাজ্য সরকার।

তৃণমূল পরিচালিত বেশকিছু পঞ্চায়েত প্রধান উপপ্রধান এর বিরুদ্ধে এর আগেও অনেকবার দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। এ প্রসঙ্গে মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেন যে, “পশ্চিমবঙ্গের মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বচ্ছতায় বিশ্বাসী। কিন্তু তার একার দ্বারা সবকিছু স্বচ্ছ রাখা সম্ভব নয়। তবে অভিযুক্তদের যথাযথ শাস্তি দেয়া হবে বলে কথা দিয়েছেন ফিরহাদ হাকিম। মানুষের সেবা করাই হলো তৃণমূলের নীতি। যে মানুষটি তৃণমূলে থেকে মানুষের সেবা না করে নিজের সেবা করবে তার জায়গা এই দলে হবে না”।