স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে খুন কাশ্মীরে, পেয়েছিলেন নাগরিকত্বের প্রমাণপত্র

বছরের একেবারে শেষ দিনে জঙ্গিদের গুলিতে নিহত হয়েছিল কাশ্মীরের এক স্বর্ণ ব্যবসায়ী। ৬৫ বছরের এই স্বর্ণ ব্যবসায়ী গত ৫০ বছর থেকে কাশ্মীরের বাসিন্দা। আসলে সূত্রের মাধ্যমে জানা গেছে, কাশ্মীরের দ্য রেজিনেন্টস ফ্রন্ট নামে একজনকে সংগঠন এই স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে হত্যা করেছে। গত মাসেই এই স্বর্ণ ব্যবসায়ী নাগরিকত্বের প্রমাণ পত্র হাতে পেয়েছিল। যার ফলে এই কাশ্মীরে নিজস্ব সম্পত্তি জমি ক্রয় করার ছাড়পত্র পেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু এই খবর পেয়ে তাকে গুলি করে হত্যা করে এই জঙ্গী সংগঠন।ইতিমধ্যে এই জঙ্গী সংগঠন তার মৃত্যুর দায় স্বীকার করেছে এবং তারা জানিয়েছে আগামীতে এই ধরনের পদক্ষেপ যারা নেবে তাদের এই ধরনেরই শাস্তি দেওয়া হবে ।

২০১৯ সালের ৫ ই আগস্ট কাশ্মীর থেকে তুলে নেওয়া হয় ৩৭০ ধারা, আর তারপরেই কাশ্মীরে এখন সহজেই জমি কেনার ছাড়পত্র হাতে পায়। ইতিমধ্যে কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা তুলে দিয়ে কেন্দ্র, দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল তৈরি করেছে। আর যার কারণেই কাশ্মীরের জমি-বাড়ি সহজেই ক্রয় করতে পারবে।কিন্তু কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী কিছু সংগঠন কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত যে ভালো চোখে একেবারেই দেখছে না সেটা হত্যালীলা দেখেই স্পষ্ট।

ইতিমধ্যে কাশ্মীরের সাধারণ মানুষ সংখ্যায় ১০ লক্ষের কাছাকাছি তারা তাদের শংসাপত্র করিয়ে নিয়েছেন। আর এর ফলেই এখন সহজেই কাশ্মীরের জমির সম্পত্তি সহজে ক্রয় করতে পারবে তারা।তবে কাশ্মীরের বাইরের মানুষজন কিভাবে জায়গা জমি কিনবে সেটা এখনো প্রকাশ করেনি কেন্দ্র।