মন্দিরে নমাজ পড়ার জেরে মসজিদে হনুমান চালিসা পাঠ করল চার যুবক

ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের বারসানা রোডে। সেখানে ৪ যুবক নমাজ জেহাদের পালটা এবার ইদগাহে পাঠ করেছে হনুমান চালিশা। আর এই নিয়ে সাম্প্রদায়িক অশান্তির সৃষ্টি। ইতিমধ্যে সেই ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে, কিন্তু তারা জানিয়েছে আসলে তারা নাকি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বার্তা দিতেই এই কাজ করেছে। কিন্তু সেই কথা মানতে নারাজ পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, আসলে ইদগাহে সেই ৪ যুবক হঠাত করেই হনুমান চালিশা পরতে শুরু করে, এখানেই শেষ না তারা সাথে জয় শ্রী রাম ধ্বনিও দিতে থাকে।

এরপরেই পুলিশের হেফাজতে আনা হয় তাদের। কিন্তু তারা জানায় যেমন ভাবে নন্দ বাবা মন্দিরে নামাজ পরে সম্প্রীতির বার্তা দেওয়ায় হয়েছিল তেমন ভাবেই এখানে হনুমান চালিসার দ্বারা সম্প্রীতির বার্তা দেওয়া হয়। কিন্তু মথুরার এস এসপি গৌরব গ্রোভার জানিয়েছেন, আসলে কেউ কিন্তু আইনের ঊর্ধে নন, যারা আইন শৃঙ্খলা ভাঙ্গবে, যারা আইনের বিরুদ্ধে গিয়ে কাজ করবে তাদের উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন। তারা যতই বলুক সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বার্তা দিচ্ছিল, কিন্তু তারা মন্দিরের মধ্যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছিলো।

আসলে এখন দেখা যাচ্ছে মুসলিম মৌলবাদীদের দুটি অস্ত্র যেটা নিয়ে সরব হিন্দিত্ববাদীরা। এক নম্বর লভ জিহাদ ও মন্দির জিহাদ। আর এবার মন্দির জিহাদ নিয়েই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।গত কয়েকদিন আগে এক মন্দিরে জোড় করেই নামাজ পরা হয়েছে, যার ফলে এই অশান্তির সূত্রপাত। ফয়জাল খান নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। প্রথমে ফয়জাল রাম চরিত মানস থেকে কয়েকটি শ্লোক পরে শোনায়, এমনকি কয়েকজন ক্যাতনামা সাধুর সাথ তার ছবিও দেখায়, এতে খুশি হলেও, পরে দেখা যায় তাকে মন্দিরের নির্জন স্থানে নামাজ পরতে।