রাতের অন্ধকারে পাকিস্তান থেকে ড্রোন দিয়ে অস্ত্র ফেলা হচ্ছে কাশ্মীরে, বড় হামলার ছক দেশে!

প্রতীক ছবি

বিগত এক বছর ধরে ভারতের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল জম্মু-কাশ্মীরের কড়া প্রহরার ব্যবস্থা করেছে কেন্দ্র। কিন্তু তার মধ্যেই উপত্যাকা অঞ্চলে ভারত বিরোধী কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছে পাকিস্তান। উপত্যকা অঞ্চলে প্রহরারত ভারতীয় সেনাবাহিনীর তরফ থেকে জানানো হয়েছে, উপত্যকা অঞ্চলে জঙ্গিদের মদত দিতে নিত্য নতুন পরিকল্পনা গ্রহণ করছে ইসলামাবাদ। রাতের অন্ধকারে চুপিসারে ভারতে অনুপ্রবেশ চালাচ্ছে পাকিস্তানী ড্রোন।

সম্প্রতি, সীমান্ত থেকে প্রায় ১২ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত আখনূর থেকে বেশ কিছু মারাত্মক আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করেছে ভারতীয় সেনা। এর মধ্যে রয়েছে দুটি অ্যাসল্ট রাইফেল, একটি পিস্তল আর তিনটি একে ম্যাগাজিন আর ৯০ রাউন্ড গুলি। জম্বু এবং কাশ্মীরের পুলিশ প্রশাসন সূত্রে খবর, পাকিস্তান থেকে ড্রোনের মাধ্যমে এ কে- ৪৭এরমতো মারাত্মক আগ্নেয়াস্ত্র সীমান্ত পেরিয়ে উপত্যকা অঞ্চলের জঙ্গিদের কাছে পৌঁছে যাচ্ছে।

পাকিস্তানি ড্রোন সীমানা পেরিয়ে ভারতের আকাশে টহল দিচ্ছে। উপত্যকা অঞ্চলের উপর নজর রাখছে। উপত্যকা অঞ্চলে পুলিশ প্রশাসন প্রাথমিকভাবে মনে করছে, এ পেছনে পাকিস্তানের কুখ্যাত জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মোহাম্মদের সদস্যেদের হাত রয়েছে। যেনতেন প্রকারে উপত্যকা অঞ্চলে সন্ত্রাসবাদী হামলা চালাতে বদ্ধপরিকর পাক মদতপুষ্ট জঙ্গী সংগঠন। বিগত এক বছর ধরেই তারা এই চেষ্টা চালাচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত সপ্তাহে উপত্যকা অঞ্চলে পুলওয়ামা হামলার মতো একটি মারাত্মক হামলার পরিকল্পনা করেছিল পাক জঙ্গী বাহিনী। তবে ভারতীয় সেনাবাহিনীর তৎপরতায় তাদের সেই পরিকল্পনা বানচাল হয়ে যায়। পুলওয়ামার জম্মু কাশ্মীর জাতীয় সড়কের পাশ থেকে বিস্ফোরক বোঝাই ট্যাংক উদ্ধার করেন ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা। ওই এলাকা থেকে ৪১৬টি প্যাকেটের মধ্যে প্রায় ৫২ কেজি বিস্ফোরক উদ্ধার করেন তারা। এই বিস্ফোরক দিয়েই উপত্যকায় বড়সড় হামলা চালানোর পরিকল্পনা ছিল জঙ্গিদের।