‘দিদির মিছিলে তো দূর, মঞ্চে অব্দি ঠাঁই হলো না কেন অনুব্রতর’, তোপ বিজেপির

ফাইল ছবি

আসন্ন একুশের বিধানসভা নির্বাচনের প্রেক্ষাপটে দলবদলের মরসুমে মুখ্যমন্ত্রী ঘনিষ্ঠ বহু নেতাকর্মীই দল ছেড়ে বিরোধী বিজেপি শিবিরের দিকে পা বাড়িয়েছেন। তবে এই দলবদল ঝড়ের মাঝেও দিদির একান্ত অনুগামী হিসেবে দলেই যারা থেকে গিয়েছেন, তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন বীরভূমের হেভিওয়েট তৃণমূলীয় জেলা সভাপতি কেষ্ট মণ্ডল ওরফে অনুব্রত মণ্ডল। বীরভূমের এই হেভিওয়েট নেতা এক ডাকে এখনো ২.৫ লক্ষ মানুষকে এক জায়গায় জড়ো করতে পারেন।

যেমনটা তিনি করে দেখিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে বীরভূমে তৃণমূলের মিছিলে। এই মিছিলের প্রধান আহ্বায়ক এবং আয়োজক ছিলেন অনুব্রত মণ্ডল। তার ডাকেই দলে দলে তৃণমূল সমর্থকরা মমতা বন্দোপাধ্যায়ের মিছিলে একত্রিত হয়েছিলেন। তবে এহেন অনুব্রত মণ্ডলকেই মিছিল থেকে আরম্ভ করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভা মঞ্চ, এদিন কোথাও খুঁজে পাওয়া গেল না!

এই নিয়ে তৃণমূল বিরোধী সমালোচকেরা কিন্তু জোর জল্পনা শুরু করেছেন। দিদির মিছিলে তো দূর, মঞ্চে অব্দি ঠাঁই হলো না কেন অনুব্রতর? প্রশ্ন তুলছেন তারা। বোলপুরে অমিত শাহের নেতৃত্বে আয়োজিত মঞ্চের পাল্টা দিতে যিনি ২.৫ লক্ষ মানুষকে এক জায়গায় জড়ো করে ফেললেন, সেই আয়োজকই শেষমেষ তৃণমূলের মিছিল এবং মঞ্চে ব্রাত্য কেন থেকে গেলেন? এই প্রশ্নের উত্তর তাদের কাছে স্পষ্ট নয়।

অবশ্য দাদার অনুগামীরা প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন। তারা বলছেন তৃণমূলের এই হেভিওয়েট দলনেতার “হেভি ওয়েট”ই নাকি এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মিছিল এবং মঞ্চে তার অনুপস্থিতির কারণ। অনুব্রত মণ্ডলের অনুগতরা জানিয়েছেন, “দিদি” এত জোরে হাঁটেন যে, তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে হাঁটতে হেভিওয়েট “দাদা”র কষ্ট হতো। তাই তিনি এদিনের মিছিল এড়িয়ে গিয়েছেন। এতে অবশ্য জল্পনার অবসান হচ্ছে না। বিরোধী বিজেপি শিবির তাও প্রশ্ন তুলছে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মঞ্চেও কেন দেখা গেলো না অনুব্রত মণ্ডলকে?