বাবরি মামলার আজ ঐতিহাসিক রায়ের অপেক্ষায় দেশ, আদালতে উপস্থিত থাকবেন না আডবাণী-জোশীরা

আজ ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদ ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া মামলার রায় প্রদান করা হবে। দীর্ঘ ২৮ বছর পর, লখনৌয়ের বিশেষ আদালতের তরফ থেকে বুধবার এই মামলার শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে। তবে, এই মামলার যারা প্রধান অভিযুক্ত যেমন উত্তরপ্রদেশের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী কল্যাণ সিং, বিজেপি নেতা লালকৃষ্ণ আডভানি, মুরলী মনোহর যোশী, প্রাক্তন মন্ত্রী উমা ভারতী আজ মামলার শুনানিতে আদালতে উপস্থিত থাকবেন না।

এদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, ১৯৯২ সালের ৬ই ডিসেম্বর যখন উত্তরপ্রদেশের কর সেবকেরা দীর্ঘদিনের পুরাতন বাবরি মসজিদ ভাঙার কাজ করছিলেন তখন তাতে প্রত্যক্ষভাবে উস্কানি দিয়েছেন লালকৃষ্ণ আদভানি, মুরলী মনোহর যোশী এবং উমা ভারতী। এরপর সারা উত্তর প্রদেশ জুড়ে হিংসার পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়।যার জেরে সেই সময়ে উত্তরপ্রদেশে প্রায় তিন হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী কল্যাণ সিং এর বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে, তিনি উত্তরপ্রদেশের হিংসার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারেননি।

এই মর্মে সেসময় বিক্ষোভের জেরে উত্তরপ্রদেশে কল্যাণ সিংয়ের সরকার পড়ে যায়। এরপর লখনৌয়ের আদালতে মোট ৩২ জন রাজনৈতিক নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে হিংসায় উস্কানি দেওয়া এবং ধর্ম নিয়ে বিভেদ সৃষ্টি করার অভিযোগ দায়ের করা হয়। দীর্ঘ ২৮ বছর পর আজ সেই মামলার শুনানি হতে চলেছে। তবে ঘটনার সঙ্গে যারা প্রধান অভিযুক্ত, তারাই আজকে আদালতে উপস্থিত থাকবেন না বলে জানা গেছে।আদালতে তরফ থেকে অবশ্য আজ, ঘটনার সঙ্গে জড়িত প্রত্যেক অভিযুক্তকে উপস্থিত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এদের মধ্যে ৯২ বছর বয়সি লালকৃষ্ণ আদভানি এবং ৮৬ বছর বয়সী মুরলী মনোহর যোশী বয়স জনিত কারনে আদালতে উপস্থিত থাকতে পারবেন না বলে আগেই জানিয়ে দিয়েছেন। উমা ভারতী বর্তমানে করোনা আক্রান্ত। তাই, তার পক্ষে আদালতে উপস্থিত হওয়া সম্ভব নয়। তবে তিনি অবশ্য বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডাকে একটি চিঠির মাধ্যমে জানিয়ে দিয়েছেন, আজ দোষী সাব্যস্ত হলে, তিনি জামিনের জন্য আবেদন করবেন না। অন্যদিকে, কল্যাণ সিং সম্প্রতি করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। তাই তিনিও আজকের শুনানিতে উপস্থিত থাকবেন না। মামলার সঙ্গে জড়িত প্রধান অভিযুক্তদের অনুপস্থিতিতেই রায় প্রদান করবে লখনৌ আদালত।