ক’রোনা টিকার নতুন আপডেট, ৫০ শতাংশ কাজ করলেও মিলবে অনুমোদন, জানালো DCGI

করোনা রোগ প্রতিহত করতে অন্ততপক্ষে ৫০ শতাংশ কার্যকরীতা থাকলেই সেই ভ্যাকসিনকে অনুমোদন দেবে ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া তথা DCGI, সম্প্রতি এই নতুন নিয়মই কার্যকর করল ভারতের ড্রাগ কন্ট্রোল বোর্ড। ভ্যাকসিন অনুমোদনের ক্ষেত্রে তারা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং আমেরিকার খাদ্য ও ওষুধ নিয়ামক সংস্থার তরফ থেকে প্রকাশিত গাইডলাইন মেনে চলবে বলে জানা গিয়েছে। ফলে এবার থেকে, কোনো ভ্যাকসিনের যদি করোনা রোগের বিরুদ্ধে না ৫০ শতাংশ কার্যকারিতা থাকে, তাহলেই সেটিকে ব্যবহারের ছাড়পত্র দেওয়া হবে।

ডিসিজিআইয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এর জন্য প্রতিটি ভ্যাকসিনকে প্রথমে তৃতীয় পর্বের ট্রায়াল সম্পন্ন করতে হবে। এই পর্বে ট্রায়ালে যদি ভ্যাকসিন করোনাভাইরাস এর বিরুদ্ধে অন্ততপক্ষে ৫০ শতাংশ কার্য ক্ষমতা দেখাতে পারে, তাহলে সেই ভ্যাকসিন কে অনুমোদন দেওয়া হবে। পাশাপাশি, করোনা রোগের অন্যতম উপসর্গ শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা বা রেসপিরেটরি ডিজিজের মোকাবিলা করতে ভ্যাকসিন কতটা কার্যক্ষম, তাও খতিয়ে দেখবে ডিসিজিআই।

উল্লেখ্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং আমেরিকায় অ্যাস্ট্রোজেনেকার মত ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলি বহু আগে থেকেই করোনা প্রতিরোধী ভ্যাকসিনের অনুমোদন দিতে অন্ততপক্ষে ৫০ শতাংশ কার্যকরীতাকে আবশ্যক ঘোষণা করেছে। এ বিষয়ে আইসিএমআর এর প্রধান বলরাম ভার্গব জানালেন, শ্বাসকষ্টজনিত উপসর্গ সৃষ্টিকারী ভাইরাস এর মোকাবিলা করার জন্য কখনো ১০০ শতাংশ কার্যকরী ভ্যাকসিন পাওয়া যায় না।

তিনি আরো জানিয়েছেন, ৫০ থেকে ১০০ শতাংশ কার্যক্ষম ভ্যাকসিনকে মান্যতা দেওয়া যেতেই পারে। তবে,গর্ভবতী মহিলাদের ক্ষেত্রে বিশেষ সর্তকতা অবলম্বন করার নির্দেশ দিয়েছে ডিসিজিআই। এক্ষেত্রে যে সকল স্বেচ্ছাসেবী মহিলা টিকাকরণের ৩০ দিন আগে বা টিকাকরণের ৩০ দিন পরে গর্ভধারণ করছেন, ট্রায়াল’ চলাকালীন তাদের শরীরে কোনোরকম অসুবিধা বা গর্ভপাতের মতো ঘটনা ঘটলে সেটিকেও গুরুত্ব দিয়ে বিচার করা হবে, বলে জানা গেছে।