বন্ধুদের দিয়ে প্রেমিকাকে লাগাতার গণধ’র্ষণ করায় প্রেমিক, ৯ মাস পর সন্তান জন্ম নিয়ে তদন্তে পুলিশ

ভারতে এখন দেখা যাচ্ছে দিন যাচ্ছে ধর্ষণের মাত্রা বেড়েই যাচ্ছে। ভারতের নারী সুরক্ষা আইন এতটাই দুর্বল যেটা আর বলার মতো না। কারণ এখন এমন অবস্হা হয়েগেছে নারীরা রাস্তায় বেড় হতেই ভয় পাচ্ছে। গত কয়েকদিন আগেই উত্তরপ্রদেশের হাতরসের ঘটনা নাড়া দিয়েছে সবাইকে। আর তার ফলেই গোটা দেশ রাগে ক্রোধে ক্ষুব্ধ। সংখ্যা দেশের মানুষ প্রতিবাদের মিছিলে সামিল হয়েছিল ও দোষীদের শাস্তির দাবি পর্যন্ত করেছিল কিন্তু এরপরেই সামনে এলো ছত্তিশগড়ের বস্তারের একটি ধর্ষণের কান্ড।

নিজের প্রেমীকাকে প্রেমিক তার বন্ধুদের দিয়ে গণধর্ষণ করায় আর সেটা একদিন নয় চলতে থাকে দিনের পর দিন। দিনের পর দিন নাবালিকার ইচ্ছার বিরুদ্ধে এই কাজ করা হয়, গোটা বিষয়টি লুকিয়ে যায় নাবালিকা, স্বাভাবিক ভাবেই ভয়ে কাওকে কিছুই বলে না সে। কিন্তু এই কথা সামনে আসে যখন সে গর্ভবতী হয়ে যায় আর ৯ মাস পরেই জন্ম দেয় এক ফুটফুটে শিশুর।

এরপরেই সবার বিরুদ্ধেই অভিযোগ দায়ের করা হয়। আর সেখানেই বলা হয় পুলিশের তরফ থেকে। ১০ মাস এই বিষয়ে কিছুই বলা হয় নি তবে এবার এই কথা বলতেই পুলিশ ব্যবস্হা নেওয়া শুরু করেছে। ইতিমধ্যে তাদের সবাইকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। নাবালিকার পরিবার জানায়, ভয়ে এতদিন কিছু বলে নি তারা। তারা চেষ্টা করেছিল সেই যুবকের সাথে নাবালিকার বিয়ে দেওয়ার। কিন্তু তখনই যুবক ধর্ষণের কথা অস্বীকার করে। এরপরেই পুলিশ ব্যবস্হা নেয় ও তাদের গ্রেফতার করে।