দিলীপের নেতৃত্বেই লড়বে বাংলার একুশের বিধানসভা নির্বাচন, জানাল কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব

বৃহস্পতিবার, বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বদের ডাকে সাড়া দিয়ে দিল্লির বৈঠকে যোগদান করেন রাজ্যের বিজেপি নেতৃত্বরা। এদের মধ্যে ছিলেন দিলীপ ঘোষ, রাজীব সিনহা, মুকুল রায় সহ অন্যান্যরা। পাশাপাশি কেন্দ্রের তরফ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সহ অরবিন্দ মেনন, শিবপ্রকাশ, কৈলাস বিজয়বর্গীয় এবং বিজেপির বর্তমান সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা। এদিনের বৈঠকে আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বাংলায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে দিলীপ ঘোষের নেতৃত্বেই নির্বাচন লড়বে বিজেপি।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি দলের সাংগঠনিক স্তরে রদবদল করেছে বিজেপি। বিজেপির সর্বস্তরের জাতীয় কমিটিতে দলের সহ সভাপতির পদের দায়িত্ব পেয়েছেন মুকুল রায়। এরপর থেকেই আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে মুকুল রায়ের ভূমিকা নিয়ে জোর জল্পনা শুরু হয়েছিলো বিজেপির অন্দরমহলে। রাজনীতিকদের একাংশ ধরেই নিয়েছিলেন, এবারের বিধানসভা নির্বাচনের দায়িত্বভার সামলাবেন মুকুল রায়। তবে এদিনের দলীয় বৈঠকে অবশ্য মুকুল রায় সম্পর্কে কোনো সিদ্ধান্ত নেননি কেন্দ্রীয় সদস্যরা।

বরং মুকুল রায়ের তুলনায় দলে অধিক গুরুত্ব পেলেন দিলীপ ঘোষ। সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটিয়ে বিজেপির তরফ থেকে জানিয়ে দেওয়া হল, আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির তরফ থেকে মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী কেউ না থাকলে, দিলীপ ঘোষের নেতৃত্বেই বাংলার নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে বিজেপি। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের একাংশের মতে, বিজেপির এই সিদ্ধান্ত পূর্বপরিকল্পিত। দিলীপ ঘোষের বদলে অন্য কাউকে দায়িত্ব দেওয়ার সম্ভাবনা থাকলে, দলের রাজ্য সভাপতি হিসেবে তার মেয়াদ বাড়ানো হতো না।

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, গত চার বছর ধরে বাংলায় যেভাবে বিজেপির অবস্থান দৃঢ় করেছেন দিলীপ ঘোষ, তাতে তাকে ছাড়া এখন অন্য কাউকে দায়িত্ব দিলে দলের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই এই সিদ্ধান্ত। উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবারের বৈঠকের পরে রাজ্যের নির্বাচনে দিলীপ ঘোষের ভূমিকা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেল। তবে, আসন্ন নির্বাচন উপলক্ষে মুকুল রায়ের ভূমিকা কি হবে, তা জানতে উদগ্রীব রাজনৈতিক মহল।