কাশ্মীর নিয়ে অবশেষে কেন্দ্রকে এই নির্দেশ দিল শীর্ষ আদালত

এবার সুপ্রিমকোর্ট কেন্দ্রকে নির্দেশ দিল, উপত্যকায় যেনো ফের ইন্টারনেট ব্যবস্থা চালু করা হয়। আর তার জন্য যেসব কার্য কাম্য সেসব যেনো তারা করে। কারণ সেখানে টানা ১০০ দিনের ওপরে বন্ধ হয়ে আছে ইন্টারনেট পরিষেবা, সেই কারণে অনেক ধরনের বড় কিছু ঘটে যেতে পারে যে একেবারে কাম্য নয়। সেখানে হাসপাতাল, শিক্ষা, সরকারি ওয়েবসাইট সব কিছুর জন্য এই ইন্টারনেট ব্যবস্থা খুবই দরকার।

গত বছরের ৫ ই আগষ্ট কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা ও ৩৫ এ ধারা রদ করা হয়েছে, সেই তখন থেকেই বন্ধ হয়ে পরে আছে ইন্টারনেট পরিষেবা। সেখানে যাতে কোনও রকম অশান্তি না ছড়ায় এর জন্য কেন্দ্রের তরফ থেকে ইন্টারনেট বন্ধ করে রাখার সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়েছে। এর ফলে এখন সেখানকার মানুষেরা পড়েছে অনেকটাই চাপের মধ্যে। কারণ তারা কোনও ধরনের দরকারী কাজ করতে পারছে না।

বিশেষ করে তাদের মেসেজিং আপ হোয়াটস আপ বন্ধ হয়ে যাচ্ছে, কারণ টানা ১২০ দিন মেসেজ না করলে তা সেটা এমনিতেই বন্ধ হয়ে যাবে। এবার তাই হচ্ছে পর পর। মানুষ তাদের তরফ থেকে প্রায় বিরক্ত, বিভিন্ন সংগঠন দাবি জানাচ্ছে যেভাবেই হোক উপত্যকায় ইন্টারনেট ব্যবস্থা চালু করা হোক পুনরায়।

সমস্তরকম এক্সক্লুসিভ খবর পেতে লাইক করুন

মানুষের অসুবিধা পর্যবেক্ষণ করে এবার শীর্ষ আদালত সিদ্ধান্তও নিয়েছে, উপত্যকায় ফের ইন্টারনেট ব্যবস্থা চালু করতে হবে। এর জন্য তারা কেন্দ্রকে নির্দেশ দিয়েছে। এই নির্দেশের ফলে অনেকে মনে করছে কেন্দ্র অনেকটাই চাপের মধ্যে পরে গেলো। এদিকে বিচারপতি রামানা বলেন, আমাদের বিচারব্যবস্থায় বলা আছে দেশের নাগরিকদের সব ধরনের সুবিধা দেওয়া, সাথে তাদের সুরক্ষিত রাখা।

কিন্তু সেই নিয়ম মানা হচ্ছে। তাই কেন্দ্রকে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে তারা যেনো উপত্যকায় ইন্টারনেট ব্যবস্থা চালু করা নিয়ে পুনর্বিবেচনা করে। এই ইন্টারনেট ব্যবহার করায় বাধা দেওয়া মানে, মৌলিক অধিকার খর্ব করা, এটা সংবিধানের ১৯/১ এ ধারাতে উল্লেখ করা আছে। তাই যতটা তাড়াতাড়ি সম্ভব কাশ্মীরে যেনো ইন্টারনেট পরিষেবা চালু করার ব্যবস্থা করা হয়। এখন অনেকেই মনে করছে হয়ত খুব শীঘ্রই কাশ্মীরে চালু হয়ে যাবে ইন্টারনেট পরিষেবা।