ভাগ্য একেই বলে! তিনশো টাকার লটারি জিতে এখন কোটিপতি এক কলেজ পড়ুয়া

তিনশো টাকার লটারি জিতে এখন কোটিপতি এক কলেজ পড়ুয়া

খুব অল্প বয়সেই ভাগ্য বদলে গেল কলেজ ছাত্র অতনু বসুর। নতুন বছরের শুরুতেই ঘরে এলো এককোটি টাকা। কর্মজীবনে পদার্পণের আগে ই হয়ে গেলেন কোটিপতি। নাগাল্যান্ড সরকারের নিউ ইয়ার বাম্পার কোম্পানির দুটি সিরিজের টিকিট কেনেন অতনু। বুধবার একটি দোকান থেকে তিনশো টাকা খরচ ঐ টিকিট টি কাটেন অতনু। কেনার সময় ভাবে নি যে নতুন বছরের শুরুতেই তার জীবনের মোড় এভাবে ঘুরে যাবে।

একটি সিরিজে থাকে পঁচিশটি টিকিট, প্রতিটির ছয় টাকা। সব মিলিয়ে দুটি সিরিজের টিকিটের দাম হয় ৩০০ টাকা। এর মধ্যে একটি সিরিজের টিকিট থেকে এক কোটি টাকা পেয়েছেন অতনু। গত বুধবার বন্ধুদের সঙ্গে পিকনিক করতে যাওয়ার কথা ছিল অতনুর। বাড়ি থেকে বেরিয়ে একটু দূরে একটি ফাস্ট ফুডের দোকানের সামনে তিনি দাঁড়িয়েছিলেন। পাশেই ছিল একটি লটারির কাউন্টার। সেখান থেকেই দুই সিরিজ টিকিট কিনে ফেলেন অতনু। দুই ঘণ্টা বাদে পর লটারির ফল প্রকাশিত হল, এবং অতনু জানতে পারলেন তিনি লটারি তে এককোটি টাকা জিতেছেন।

কলেজপড়ুয়া অতনু বিনা পরিশ্রমে একমাত্র ভাগ্যের জোরে এখন কোটিপতি। অতনুর নদিয়ার গাংনাপুর থানা এলাকার এরুলি মিত্র পাড়ায় থাকে। তার বাবা যখন মারা যান, তখন অতনুর বয়েস মাত্র পাঁচ বছর। বাবার অকাল প্রয়াণে তারা অসহায় হয়ে পড়েন। তখন থেকেই তাঁদের পিসি ডলি বসু তাদের দুই ভাইবোনের পড়াশোনার এবং ভরণপোষণের দায়িত্ব নেন।

সমস্তরকম এক্সক্লুসিভ খবর পেতে লাইক করুন

অতনু রানাঘাট কলেজে বিএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। তিনি টিউশন পড়িয়ে পরিবারকে কিছু টা সাহায্য করেন। কোটি টাকার জিতে অতনু জানান, তাঁর একমাত্র বোনের বিয়ে এবং নিজের উচ্চশিক্ষার জন্য অর্থ ব্যয় করবেন। এবং কিছু টাকা সাহায্যের জন্য দানও করবেন।

অতনুর কোটি টাকার লটারি পাওয়ার খবর এলাকায় ছড়িয়ে যেতেই আলোচনা করছে এলাকাবাসী। খবর পেয়েই গাংনাপুর থানার পুলিশ ছুটে যায়। টিকিটটি সংগ্রহ করে তাঁরা থানায় রয়েছেন। রাতারাতি কোটিপতি হয়ে যাওয়ায় তাঁর বা তাঁর পরিবারের লোকেদের যাতে কোন আপদ বিপদ না হয় সেজন্য তাদের গাংনাপুর থানায় রাখার ব্যবস্থা করেছে পুলিশ।