এক মাত্র ভারী বৃষ্টিই রক্ষা করতে পারে দিল্লিকে! দূষনের বেড়াজালে হাঁসফাঁস অবস্থা

এক মাত্র ভারী বৃষ্টিই রক্ষা করতে পারে দিল্লিকে! দূষনের বেড়াজালে হাঁসফাঁস অবস্থা

সবাই যা মনে মনে করেছিল তা আর হল কোথায়? সবাই ভেবেছিল দিল্লির দূষণ এখন যাওয়ার সময় হয়ে গেছে, কিন্তু না এখনই তা যাবার নয়। তার জন্য উপযুক্ত কোনও ব্যবস্থা না নিলে দিল্লির অবস্থা আরও খারাপ থেকে খারাপ্তর হতে চলেছে। সেদিন দিল্লি এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স টেস্ট হয়েছে আর তাতে ধরা পড়েছে লোধী রোডের অবস্থা। সেখানে ২০৫ সর্বনিন্ম আর সর্বোচ্চ ২১০। শুধু সেখানে নয় আরও অনেক জায়গাতেই খারাপ পরিস্থিতি। এতে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে দূষণ একেবারে আঠার মতো লেগে আছে। সে যাওয়ার নামই করছে না।

এবার এই দূষণ একমাত্র মুষুল ধারে বৃষ্টির ফলেই যাওয়া সম্ভব। কিন্তু তাও হচ্ছে না, যেখানে ভারী বৃষ্টি হওয়ার কথা সেখানে ঝিরিঝিরি বৃষ্টিও ঠিক ঠাক হচ্ছে না। বিশেষোজ্ঞদের মতে উত্তরের হাওয়ার গতিও তেমন একটা নেই। যার ফলে দূষণ একজায়াগাতেই স্থায়ী অবস্থায় আছে। এদিকে এই অবস্থা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার ও রাজ্যসরকারকে এক হাত নিয়েছে। তারা বলছে কি করছে সরকার, তারা এই দূষণ প্রতিরোধ করতে পারছে না। তাছাড়া পাঞ্জাবের মুখ্যলচিবকে রুকতে পারছে না কেনো তারা। এই খড় পোড়ানোকে সরকার কেনো নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না? এর জবাব তাদের দিতে হবে।

দিল্লির অবস্থা এতোটাই খারাপ যে মানুষ ঠিক ঠাক বাইরে বের হতে পারছে না। তাদের চোখ জ্বালা করছে। দম বন্ধ হয়ে আসছে, এই অবস্থার ওপরে সলিসিটারি জেনারেল বলেছে, দিল্লির মানুষ কেনো এই গ্যাস চেম্বারে থাকছে? একবারে বিষ দিয়ে তাদের মেরে ফেলা হোক। সাথে কিছু বিস্ফোরক তাদের এই কাজে সাহায্য করবে। সরকার এর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ না করে, একে অপরের ঘাড়ে দোষ চাপাচ্ছে । কেউ এর উপযুক্ত ব্যবস্থা করছে না।।