রাতারাতি পালিয়ে গেলো আলিপুরদুয়ারে চা বাগানের কতৃপক্ষ, বীরপাড়ায় বিক্ষোভ ৩০০০ কর্মীর

155

আলিপুরদুয়ার: দীপাবলির আগেই অন্ধকার উত্তরের চা বলয়ে। শনিবার সকাল থেকে বন্ধ হয়ে গেলো কালচিনি ব্লকের কালচিনি ও রায়মাটাং চা বাগান। রাতের অন্ধকারে চা বাগান ছেড়ে চলে গেছে আলিপুরদুয়ারের কালচিনি চা বাগান কতৃপক্ষ। শনিবার সকাল থেকে কাজ বন্ধ। একই মালিক গোষ্ঠীর রায়মাটাং চা বাগানেও অচলাবস্থ্যা তৈরি হয়েছে। বিপাকে দুই চাবাগানের প্রায় ৩০০০ হাজারের বেশি শ্রমিক।

এই রকম আপডেট পেতে লাইক করুন

“সারাদেশ মে দেওয়ালি/বীরপাড়া বাগান মজদুর কা পেট খালি, এই স্লোগান দিয়ে  বকেয়া মজুরীর ও বোনাসের দাবী জানিয়ে শনিবার সকালে বীরপাড়া চৌপথিতে জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাল মাদারিহাট বীরপাড়া ব্লকের বীরপাড়া চা বাগানের শ্রমিকরা।

এদিন সংশ্লিষ্ট চা বাগানের শতাধীক মহিলা ও পুরুষ শ্রমিক এবং বাগান কর্মীরা বকেয়া মজুরী ও বোনাসের দাবিতে একঘন্টা জাতীয় সড়ক অবব্রোধ করে রাখেন।।শ্রমিকরা জানান, তারা গত দুই মাস যাবৎ কোনো মজুরি পাচ্ছেন না। এমনকি বোনাসের প্রতিশ্রুতি দিয়েও প্রাপ্য দুর্গা পুজার বোনাস দেয় নি।

ফলে জীবিকার স্বার্থে আজ কালি পূজার দিন পথে নামতে হচ্ছে। পাশাপাশি বর্তমান মালিকের পরিবর্তে নতুন মালিকানাধীনে বাগান চালুর দাবী জানান। বাগান কর্মী রবীন সন কুজুর ব লেন দুই মাস বেত ন নেই, বোনাস পাই নি। পুজার আগে ম্যানেজার গা ঢাকা গিয়েছে।বাগান টি বন্ধ হ য়ে আছে।প্রচন্ড আর্থিক সঙ্কটে দিন কাটাচ্ছি।

এদিন শ্রমিকদের সমর্থনে এগিয়ে আসেন সব রাজনৈতিক দলের ট্রেড ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ। ডুয়ার্স চা বাগান ওয়ার্কাস ইউনিয়নের সভাপতি  গোপাল প্রধান বলেন দুই মাস  ধরে বাগান শ্রমিকরা প্রাপ্য মজুরী পাচ্ছে না।আশা করেছিলাম হয়ত বা দুর্গা পুজার বোনাস কালী পূজায় পাবে। তাও পেল না ।

বাধ্য হয়েই শ্রমিকদের একাংশ কাঁচা পাতা তুলে বিক্রী করছে কিন্তু এভাবে চলতে পারে না।পাতা তোলা বন্ধ হলে বাগানে বিশৃঙখলা দেখা দেবে।তাই আমরা রাস্তায় নেমে সরকারের দৃষ্টি আক্র্ষন করছি। সি,পি,এমের শ্রমিক নেতা রবিন রাই ও শ্রমিকদের স্বার্থে অবিলম্বে সরকারের হস্তক্ষেপের দাবী জানান।

চা বাগান তৃনমুল কংগ্রেস মজদুর উনিয়নের সহ সভাপতি মান্নালাল জৈন বলেন,আমরা বাগানের দুরাবস্থার কথা প্রশাসনের প্রতিটি  স্তরেই জানিয়েছি।আমরা চাই প্রশাস নের হস্তক্ষেপে ডাংকান্সের বাগান টি খুলেছিল, সেভাবেই সরকার অন্য এজেন্সীর হাতে বাগান তুলে দিয়ে বাগানটি চালু করুক।

অপর দিকে অবব্রোধের জেরে প্রায় এক ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ হ য়ে যায়। যদিও পুলিশ প্রশাসন মোতায়েন ছিল। শেষে অবশ্য জেলা পরষদের মেন্টন মোহন শর্মার আশ্বাস পেয়ে অবব্রোধ উঠে যায়। মোহন বাবু বলেন,,দীপাবলীর দিনে শ্রমিকদের রাস্তায় নামতে হচ্ছ, এটা খুবই দুঃখ জনক।

তিনি জানান আপাতত শ্রমিকদের ফুড ও ক্যাস জি,আর দেওয়ার ব্যাবস্থা করবেন এবং ফিরে গিয়ে ডি,এম এবং শ্রম মন্ত্রীর সাথে কথা বলবেন।পুজার পর যাতে কোন নতুন মালিকে দিয়ে বাগান সচল করা যায় তিনি সে চেষ্ঠা করবেন।

এই রকম আপডেট পেতে লাইক করুন