ক’রোনার ভ্যাক’সিন নিয়ে ফের আশঙ্কার কথা শোনাল WHO

এখনও সারা বিশ্ব একটা বিশাল প্রশ্নের মুখে আর সেটা হল কবে হাতে আসবে করোনার ভ্যাক্সিন। কবেই বা তার টিকাকরণ চালু হবে। এবার এটা নিয়েই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা উত্তর দিয়েছে। তারা জানিয়েছে আগামী ২০২১ এর মাঝামাঝি সময় না হওয়া পর্যন্ত এই টিকাকরণ কোনোভাবেই শুকরা সম্ভব নয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আসলে সব কিছু ক্ষতিয়ে নিয়ে একেবারে তাড়াহুড়ো না করেই যে পদক্ষেপ গুলো গ্রহণ করতে চায় সেটা কিন্তু স্পষ্ট। আজ শুক্রবার তারা সেই কথাই জানিয়েছে, আগামী বছরের মাঝামাঝি সময় ছাড়া টিকাকরণ করা সম্ভব নয়।

আসলে কোন ভ্যাক্সিনের কার্যকারিতা কেমন হবে, সাথে কোন ভ্যক্সিন মানুষের জন্য কতটা সুরক্ষিত, কেমন কি সাইড ইফেক্ট আছে সব কিছু ক্ষতিয়ে দেখতেই সময়টা বেশী লাগবে বলেই মনে করছে হুঁ। তাছাড়া এই নিয়ে মুখ খুলেছেন মুখপাত্র মার্গারেট হ্যারিস, তিনি বলেন, আসলে ভ্যাক্সিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালেই বেশী সময় লেগে যাবে, যার ফলেই সময়টা এমনিতেই বেড়ে যাবে। আর তার থেকেও গুরুত্বপূর্ণ কথা হল কোনোভাবেই সুরক্ষা বিধি লঙ্ঘন করা যাবে না। মানুষের জন্য কেমন কি ভাবে এফেক্ট করছে ভ্যাক্সিন এইসব খতিয়ে দেখতেই ২০২১ সালের মাঝামাঝি সময় লেগেই যাবে।

তবে হুঁ এবং গাভি দুই সংস্হা মিলেই একটি ভ্যাক্সিন তৈরী করার চেষ্টা চালাচ্ছে, নাম রাখা হয়েছে কোভ্যাক্স। এদিকে আমেরিকার, রাশিয়ার, অক্সফোর্ডের সব ভ্যক্সিন বাজারে আগামী কিছুদিনের মধ্যেই আসবে। এখন সেই সব ভ্যাক্সিন রয়েছে ট্রায়াল পর্যায়েই। তবে সব কিছু ঠিক থাকলে ২০২১ এর মাঝামাঝি সময় লেগেই যাবে, সারা পৃথিবীতে টিকাকরণ করতে। এখন ২ কোটি ডোজ তৈরী করার লক্ষ্যে হুঁ। তবে বিভিন্ন দেশ তাদের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক চুক্তি সাড়ছে নিজেদের মধ্যেই। কিন্তু হুঁ ভ্যাকসিনের জন্য তাদের দুয়ার খোলা রাখবে সর্বদা, কারণ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একটাই লক্ষ্য বিশ্বের মানুষকে করোনা থেকে মুক্ত করা।