হাত স্যানিটাইজার দিয়ে ধুতে চান?, তাহলে ব্যবহার করুন পা, অবাক আবিষ্কার

করোনা ভাইরাস সংক্রমন আটকানোর জন্য সবসময় মাস্ক ব্যবহার এবং হাত ধোয়ার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু রাস্তাঘাটে বের হলে অথবা খুব প্রয়োজনীয় কোনো কাজে বের হলে সবসময় হাত ধোয়া সম্ভব হয়না। এরজন্য স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হয়। মহারাষ্ট্রে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১৯ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে। সেখানকার বাজার, বাসস্ট্যান্ড এবং বিভিন্ন জায়গায় স্যানিটাইজার স্টেশন বসানোর কাজ করছে একটি ইকো স্টার্ট আপ সংস্থা।

তাদের বসানো স্যানিটাইজার স্টেশনের একটি বৈশিষ্ট হল, হাত না লাগিয়েই মিলবে স্যানিটাইজার। এই সব স্টেশনের নাম ‘হ্যান্ডস ফ্রি স্যানিটাইজার স্টেশন’। বাজারে দোকানে বা বিভিন্ন জায়গায় রাখা স্যানিটাইজারের বোতল হাতে করে স্যানিটাইজার নিলে সংক্রমণ আশঙ্কা কিছুটা থেকে যায়। হয়ত এক জন সংক্রমিত ব্যক্তি হাত দিয়ে স্যানিটাইজার নিয়েছেন। তার পর এক জন সুস্থ ব্যক্তি হাত দিয়ে সেই বোতল থেকে স্যানিটাইজার নিলে তারও সংক্রমণের আশঙ্কা থাকে।

এই আশঙ্কার কথা মাথায় রেখেই মুম্বইয়ের বিভিন্ন এলাকায় এই হ্যান্ডস ফ্রি স্টেশন বসানো হয়েছে। সেখানে রাখা স্যানিটাইজারের বোতল থেকে স্যানিটাইজার নিতে হাত লাগাতে হবেনা। মুম্বইয়ের বিভিন্ন জায়গায় এক হাজারেরও বেশি স্যানিটাইজার স্টেশন বসানো হয়েছে। সেই স্টেশনে স্ট্যান্ডের মধ্যে বোতল রাখা হচ্ছে। স্ট্যান্ডের তলায় থাকা পাদানিতে চাপ দিলেই নির্দিষ্ট পরিমাণ স্যানিটাইজার বেরিয়ে আসবে। ইকো স্টার্ট আপ সংস্থাটির নাম বেকো।

এই সংস্থার সহ প্রতিষ্ঠাতা আদিত্য রুইয়া বলেছেন, তাঁরা তাঁদের প্রোডাক্ট বাজারে বিক্রি করেন। কিন্তু করোনার পর পরিস্থিতি বদলে গিয়েছে। তাই হ্যান্ডস ফ্রি স্টেশনের পথে এগোচ্ছেন বলে জানান তিনি। স্যানিটাইজার ছাড়াও ইয়ার বাডস, টুথপিক, টিস্যুও বানায় এই সংস্থা। করোনা মোকাবিলার জন্য সরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক এবং কিছু অসরকারি সংস্থাকে দানও করেছেন তাঁরা।