খোদ কলেজ স্ট্রিটের দোকান থেকেই চুরি প্রায় ২২ হাজার টাকার বই, বিক্রি কোথায় করবে চোর, উঠলো প্রশ্ন

নতুন বছরের শুরুর দিকেই অসাধু কার্যকলাপে মেতে উঠলো কলকাতা। একই দিনে কলকাতায় পরপর তিনটি চুরি এবং ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটলো। প্রথম ঘটনাটি ঘটেছে কলেজ স্ট্রিটে, একটি বইয়ের দোকানে। অভিযোগ ওই বইয়ের দোকান থেকে রাতারাতি অন্তত ২২ হাজার টাকার বই চুরি করে পালালো দুষ্কৃতীরা। দোকানের মালিক জানাচ্ছেন দোকান থেকে অন্তত ১০০টি বই খোয়া গিয়েছে।

বরাহনগরের বাসিন্দা ওই দোকানের মালিকের শম্ভু চ্যাটার্জি স্ট্রিটে দীর্ঘদিন ধরেই একটি বইয়ের দোকান রয়েছে। অভিযোগ সেই বইয়ের দোকানের লক ভেঙে ২১ হাজার ৫০০ টাকার বই এবং দোকানের নগদ তিন হাজার তিনশো টাকা চুরি করে পালায় দুষ্কৃতীরা। ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে জোড়াসাঁকো থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। পুলিশের অনুমান, বই বিক্রি করার উদ্দেশ্যেই এই চুরি করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত চলছে।

এদিকে একই দিনে আবার মানিকতলায় একটি ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটেছে। মানিকতলার বাগমারি রোডে ফোনে কথা বলতে বলতে রাস্তায় হাটার সময়েই এক দুষ্কৃতী এসে তার ফোনটি ছিনিয়ে নিয়ে চলে যায়। তিনি অবশ্য দুষ্কৃতীর পেছনে ধাওয়া করেছিলেন। তবে লাভ কিছু হয়নি। দুস্কৃতি ফোন নিয়ে রীতিমতো হাওয়া হয়ে যায়। ফোন ছিনতাইয়ের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে স্থানীয় মানিকতলা থানায় এফআইআর দায়ের করেছেন ওই ফোনের মালিক।

তৃতীয় ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব কলকাতার ট্যাংরা থানা এলাকায়। স্থানীয় ক্রিস্টোফার রোডের বাসিন্দা এক মহিলা এক পার্লারের বিউটিশিয়ানের বিরুদ্ধে সোনার দুল চুরির অভিযোগ এনেছেন। মহিলার অভিযোগ, ওই পার্লারে ফেসিয়াল করানোর সময় তিনি তার সোনার কানের দুল দুটি পাশের টেবিলেই খুলে রাখেন। ফেসিয়াল করানোর পর তিনি সে দুটিকে আর খুঁজে পাননি।ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ওই বিউটিশিয়ানের প্রতি অভিযোগের আঙুল তুলে ট্যাংরা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন তিনি। সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখে ঘটনার তদন্ত চালাচ্ছে পুলিশ।