কো’ভি’ডে’র সা’থে ল’ড়া’ই’য়ে অ’ব’স’র’প্রা’প্ত চি’কি’ৎ’স’ক’দে’র ম’য়’দা’নে না’মা’চ্ছে সে’না’বা’হি’নী

দেশের করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় ইতিপূর্বে বায়ুসেনা বিভাগের সদস্য এবং হেলিকপ্টার ব্যবহার করার কাজ শুরু হয়েছে। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চিকিৎসক এবং ওষুধপত্রসহ জরুরী পরিষেবা পৌঁছে দিচ্ছেন বায়ুসেনা বিভাগের ক্যাডাররা। এবার সেই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হলেন ভারতীয় সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত চিকিৎসকরা। বিগত দুই বছরের মধ্যে যারা ভারতীয় সেনাবাহিনী থেকে অবসর নিয়েছেন সেই চিকিৎসকরা এবার করোনা মোকাবিলায় অংশগ্রহণ করবেন।

এমন সিদ্ধান্ত গ্রহণের আগে সোমবার ভারতীয় সেনার সর্বাধিনায়ক বিপিন রাওয়াতের সঙ্গে বৈঠকে বসলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৈঠক শেষে চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ বিপিন রাওয়াত জানালেন দেশের করোনা পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে সেনার অবসরপ্রাপ্ত চিকিৎসকদের ডেকে পাঠানো হচ্ছে। প্রয়োজনে সেনার ভাণ্ডার থেকে হাসপাতালগুলিতে অক্সিজেন সিলিন্ডার জোগান দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে উক্ত বৈঠকে।

এদিন বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী করোনা মোকাবিলায় ফৌজের তিন বাহিনীকেই স্থানীয় প্রশাসনের পাশে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। সেনার মেডিক্যাল অফিসার ও ইউনিটগুলি স্থানীয় প্রশাসনের পাশে থাকবেন। ভারতীয় বায়ুসেনা বিভাগ অক্সিজেন পরিবহণে আরও দ্রুত কাজ করবে। আর্মি, নেভি ও এয়ারফোর্সের চিকিৎসকরা কোভিড হাসপাতালগুলিতে একযোগে কাজ করবেন।

উল্লেখ্য এর আগে গত মঙ্গলবার ভারচুয়ালি সেনার তিন বাহিনীর প্রধান ও চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ বিপিন রাওয়াতের সঙ্গে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং। ভারতীয় প্রতিরক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন সংস্থার (DRDO) চেয়ারম্যান ও আর্মড ফোর্সেস মেডিক্যাল কলেজের ডিজিও ঐদিনের আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন। তখনই ভারতীয় সেনাবাহিনীকে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলার কাজে লাগানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।