নন্দীগ্রামে আমিই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হারাব, হুঙ্কার শুভেন্দুর

গত কয়েকদিন আগেই তৃণমূলের সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখের থেকেই শোনা গিয়েছিল এক নতুন মাস্টারস্ট্রোকের কথা। এবার নন্দীগ্রামের আসন থেকে ভোটে দাঁড়াচ্ছেন স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু বিজেপির হয়ে তার মুখোমুখি করবে কে? প্রথমে শুভেন্দু অধিকারীর নামে উঠে আসছিল কিন্তু এবার স্বয়ং শুভেন্দু অধিকারী সেই জল্পনা পরিস্কার করে দিল।

গত সোমবার 18 জানুয়ারি শুভেন্দু অধিকারী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে উদ্দেশ্য করেই এক জনসভায় বলেছিলেন, নন্দীগ্রামে মাননীয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভোটে দাঁড়াচ্ছেন, তাই বলছি আমাকে পাঠিয়ে দিক বা নন্দীগ্রামে অন্য কাউকে দার করাক। যদি মাননীয় কে হাফ লাখ ভোটে না হারাতে পারি তাহলে আমি রাজনীতি ছেড়ে দেবো। কিন্তু যেটা নিয়ে জল্পনা ছিল বিজেপির নতুন মুখ দেখতে পারবো আমরা নন্দীগ্রামে? কিন্তু গত শুক্রবার তিনি স্পষ্ট জানালেন আমি দাঁড়াবো নন্দীগ্রাম থেকে।

গত শুক্রবার শুভেন্দু অধিকারী অন্যান্য বিজেপি নেতাদের সহিত নিউ দিঘা থেকে ওল্ড দিঘা রোড–শো করেন। যেখানে উপস্থিত ছিল জয়প্রকাশ মজুমদার, সভাপতি অনুপ চক্রবর্তী। রোড শো শেষ করে তিনি সভামঞ্চে গিয়ে তৃণমূলের উদ্দেশ্যে সংক্ষিপ্ত বলেন, শাসক দলের একশ্রেণীর নেতারা দীঘাকে ত্রাসের নগরী বানিয়ে ফেলেছে, এই সব কিছুতেই মেনে নেওয়া হবে না।

এরপরই তার তীক্ষ্ণ প্রশ্নবাণ ছাড়েন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্দেশ্যে। তিনি বলেন শোনা যাচ্ছে মাননীয়া নন্দীগ্রাম থেকে দাঁড়াবেন, আদৌ দাঁড়াবেন কিনা জানিনা। কিন্তু দাঁড়ানো উচিত। আর আমি তাকে হারাবো। এখানেই শেষ নয়, চিনি শেষে বলেন, রামনগরটা দেবেন তো?লোকসভা ভোটে আপনারা যেমন শিশিরবাবুকে ৫০০০ ভোটের ব্যবধান করে দিয়েছিলেন তেমনভাবেই বিধানসভা ভোটে ব্যবধান বাড়িয়ে ২৫০০০ করতে হবে।