মালিতে এয়ার স্ট্রাইক ফরাসি বায়ুসেনা, খতম অন্তত ৫০ জন জঙ্গি

প্রতীক ছবি

ভারতের পাশাপাশি ফ্রান্সও জঙ্গিদমন অভিযানে সফলতার সঙ্গে অংশগ্রহণ করছে। একের পর এক জঙ্গি দমন অভিযান চালিয়ে একাধিক আল-কায়েদা জঙ্গী’কে নিকেশ করছে ফ্রান্সের প্রতিরক্ষা বাহিনী। সম্প্রতি, ফ্রান্সের বিমান বাহিনী মালিতে জঙ্গি দমন অভিযান চালায়। ফ্রান্সের বিমান বাহিনীর এয়ার স্ট্রাইকে ইতিমধ্যেই আল-কায়েদা জঙ্গি গোষ্ঠীর ৫০ জন সদস্য খতম হয়েছে বলে জানা গেছে।

সূত্রের খবর, গত শুক্রবার থেকেই জঙ্গি ঘাঁটিতে আক্রমণ চালিয়ে জঙ্গি দমন অভিযানে নেমেছে ফ্রান্স। বুরকিনা ফাসো এবং নাইজার সীমান্তে দফায় দফায় জঙ্গি দমন অভিযান চালানো হচ্ছে। ফ্রান্সের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ফ্লোরেন্স পার্লের দাবি অনুযায়ী, নাইজার সীমান্তে দীর্ঘদিন ধরেই আল-কায়েদা জঙ্গি গোষ্ঠী ঘাঁটি গড়ে তুলেছিল। এখানে জঙ্গী প্রশিক্ষণের কাজ চলত। বর্তমানে জঙ্গিদের বেশিরভাগ ঘাঁটিই বিনষ্ট করা হয়েছে বলে দাবি করেছন তিনি।

ফ্রান্সের প্রতিরক্ষামন্ত্রী আরো জানালেন, মালি এবং সোমালিয়ায় জঙ্গীদের প্রভাব বাড়ছে। ২০১৩ সালেও একবার জঙ্গি দমন অভিযানে নেমেছিল ফ্রান্সের প্রতিরক্ষা বাহিনী। সেসময় দফায় দফায় অভিযান চালিয়ে ফ্রান্সের কনা শহরটিকে জঙ্গী প্রভাব মুক্ত করা সম্ভব হয়। সম্প্রতি নাইজার সীমান্তে জঙ্গিদের ড্রোন উড়তে দেখা গিয়েছিল। এরপরই প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠকের পর এলাকায় জঙ্গি দমন অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে প্রতিরক্ষা বাহিনী।

প্রেসিডেন্টের অনুমতি মিলতেই এলাকায় ফরাসী সৈন্য বাহিনীর তরফ থেকে দুটি মিরাজ ফাইটার জেট এবং সশস্ত্র ড্রোন পাঠানো হয়। জঙ্গী ঘাঁটি গুলি কে চিহ্নিত করে তার উপর মিসাইল হামলা চালানো হয়। ফলস্বরূপ ইতিমধ্যেই ৫০ আল-কায়েদা জঙ্গী’ খতম হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে। চারজন জঙ্গি সদস্যকে জীবিত অবস্থায় পাকড়াও করা হয়েছে। জঙ্গী ঘাঁটি গুলি থেকে প্রচুর পরিমাণে আত্মঘাতী জ্যাকেট এবং বিস্ফোরক পাওয়া গেছে বলে জানানো হয়েছে।