ভারতে ক’রো’নার নয়া স্ট্রেন আরো বেশি মারাত্মক, আক্রান্তের হতে পারে দ্বিতীয়বারও: AIIMS প্রধান

মহারাষ্ট্রের করোনা পরিস্থিতি ক্রমেই সারা দেশের পক্ষে ব্যাপক দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। মহারাষ্ট্রে করোনার নতুন স্ট্রেইন দেখা দিয়েছে। করোনার এই নতুন স্ট্রেইন অত্যন্ত শক্তিশালী এবং সংক্রামক বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। ভাইরাসের এই স্ট্রেইনে আক্রান্তদের সুস্থ হয়ে যাওয়ার পরেও নতুন করে ফের সংক্রমিত হয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। মহারাষ্ট্রের সংক্রমণের জেরে দেশের আরও পাঁচটি রাজ্যে চূড়ান্ত সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে।

বিশিষ্ট সূত্রে খবর, প্রাথমিকভাবে মহারাষ্ট্রের অমরাবতী, আকোলা, যবৎমল ছড়িয়ে পড়েছিল করোনার এই নতুন স্ট্রেইন। এখন দেখা যাচ্ছে মহারাষ্ট্রের বেশিরভাগ জেলাতেই দাপটের সঙ্গে ছড়িয়ে পড়ছে করোনা। মহারাষ্ট্র ছাড়াও কেরল, মধ্যপ্রদেশ, চন্ডিগড়, পাঞ্জাব এবং ছত্রিশগড়েও করোনার নতুন স্ট্রেইন আক্রমণ চালিয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিকেল সায়েন্সের প্রধান ডক্টর রনদীপ গুলেরিয়া করোনার এই নতুন স্ট্রেইনটি সম্পর্কে চূড়ান্ত সতর্কবার্তা জারি করেছেন। তিনি জানাচ্ছেন করোনার এই নতুন স্ট্রেইনটি আরো বেশি সংক্রামক এবং এর থেকে পুনসংক্রমনের আশংকা দেখা দিচ্ছে। যতজন এই নতুন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন তাদের শরীরের নিউমোনিয়ার লক্ষণ দেখা দিচ্ছে।

এ সম্পর্কে এইমসের প্রধানের বক্তব্য, করোনা সারিয়ে ওঠার পরে শরীরে করোনা প্রতিরোধী অ্যান্টিবডি তিন মাসের বেশি স্থায়ী হচ্ছে না। যে কারণে পুনরায় সংক্রমণের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। করোনাভাইরাসের জিনের গঠনবিন্যাসে প্রতিনিয়ত বদল ঘটছে। যে কারণে ভাইরাসের মানব শরীরে প্রবেশ এবং শরীরের ইমিউন সিস্টেমকেই দুর্বল করে দেওয়ার ক্ষমতা দিন প্রতিদিন বাড়ছে। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে নাইট কারফিউ জারি করা হচ্ছে মহারাষ্ট্রে।