বিরক্তিকর, বচ্চনের গলায় কোভিড কলার টিউন, মামলা দায়ের হলো দিল্লি হাইকোর্টে

বিগত প্রায় এক বছর ধরে সারা বিশ্বজুড়ে করোনার দাপট চলছে। প্রত্যেক দেশের সরকার, প্রশাসনের তরফ থেকে বারংবার দেশবাসীকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। ভারতেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। ভারতে প্রশাসনের পাশাপাশি ‌সেলিব্রিটিরাও জনগণকে সচেতন করার কাজে এগিয়ে এসেছিলেন। টেলিমিডিয়া, সোশ্যাল মিডিয়াকে হাতিয়ার করে তারা জনগণকে করোনা এবং তার প্রভাব ও প্রতিকার সম্পর্কে অবগত করানোর দায়িত্ব নিয়েছেন।

তবে, কোনো কিছুতে একঘেয়েমি চলে এলে স্বভাবতই তার আর কোনো মূল্য থাকে না। যেমনটা হয়েছে কলার টিউনের ক্ষেত্রে। দেশজুড়ে করোনা পর্ব শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই প্রত্যেক দেশবাসীর মধ্যে কলার টিউনের মাধ্যমে করোনা সম্পর্কিত সচেতনতা ছড়ানোর পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। সেই পরিকল্পনা অনুসারে দেশের যেকোনো প্রান্তের গ্রাহক যখনই কারোকে ফোন করছেন, তখনই অমিতাভ বচ্চনের গলায় দীর্ঘক্ষণের সতর্কবার্তা শুনতে হচ্ছে।

লকডাউন পর্বের পাশাপাশি আনলক পর্বজুড়েও চিত্রটা বদলায়নি‌। প্রয়োজনে, অত্যন্ত ব্যস্ত সময়ে, জরুরী পরিস্থিতিতে কাউকে ফোন করতে গেলেই অমিতাভ বচ্চনের গলায় দীর্ঘক্ষন করোনা সতর্কতা বাণী শুনতে শুনতে মানুষ প্রায় বিরক্ত। এই সমস্যার সমাধানে এবার দিল্লির আদালতে একটি জনস্বার্থ মামলা দায়ের করা হলো। নিত্যদিন এক উপদেশ শুনতে শুনতে মোবাইল গ্রাহকেরা তিতিবিরক্ত।

এই মর্মে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে দিল্লির আদালতে। সমস্যা বিবেচনা করে অবিলম্বে তার সমাধান চাইছেন আবেদনকারীরা। নিদেনপক্ষে উপদেশ “স্কিপ” করারও কোনো অপশন রাখা হয়নি। এমতাবস্থায় দিল্লি হাইকোর্ট এই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে কি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে, তা জানতে আগ্রহী সারাদেশ। এই মামলার মাধ্যমে দেশবাসীর সমস্যা দূর হয় কিনা তাই এখন দেখার।