অবশেষে মমতার পথেই হাটল কেন্দ্র

ফাইল ছবি

আজ সারা দেশে কংগ্রেস ও সিপি আই এম মিলে এই বনধ ডেকেছে। আর তার কারণেই কেন্দ্রীয় সরকারী কর্মীরা এই বনধে সামিল হয়েছে নিজেদের কাজ কামাই করে। এদিকে এই কান্ড দেখে বিজেপি সাংসদ ডঃ সুভাষ মুখোপাধ্যায় অনেক চেষ্টা করে পোস্ট অফিসের কাজ স্বাভাবিক রাখার, কিন্তু তাতে তিনি সফল হয় নি। সকাল থেকেই কর্মীরা ধর্মঘটে যোগ দিয়েছেন।

আর তার কারণে পোস্ট অফিসের কাজ একেবারে ব্যহত হয়ে পড়েছে। এমনকি যারা কংগ্রেস ও বাম সমর্থক তারা পোস্ট অফিসের সামনে আন্দোলনে বসেছেন। এইসবের পরেও বিজেপি সাংসদ তাদের কাজে যোগ দেওয়ার নির্দেশ দিলেও, তারা তা অমান্য করায় শেষ পর্যন্ত মমতার পথ বেছে নিল বিজেপি।

তাদের তরফ থেকেও বলা হয়েছে যারা আজ কাজে যোগ দবে না তাদের ছুটি ও বেতন দুই কাটা হবে। এদিকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এই ধর্মঘট নিয়ে কড়া ব্যবস্থা নিয়েছেন। তিনি সব কর্মীদের বলে দিয়েছেন যারা এই ধর্মঘট মেনে ঘরে বসে থাকবেন তাদের বেতন সহ ছুটি কাটা হবে। পরে জানা যায় নবান্ন থেকে এও বলা হয় যারা আজ এই ধর্মঘট মেনে কাজে যোগ দেবেন না, তাদের চাকরী জীবন থেকে ১ দিন কাটা যাবে মানে, আপনি যেদিন রিটেয়ার করতেন, তার একদিন আগেই আপনি রিটেয়ার করবেন।

এবার বিজেপি সাংসদেরাও মমতা ব্যানার্জীর পথে হেটেছেন তারাও তাদের কর্মীদের জানিয়ে দিয়েছে, কাজে যোগ না দিলে বেতন কাটা হবে। এদিকে বিজেপি সাংসদেরা ডাকঘরের কাজ স্বাভাবিক করার জন্য নিজের হাতে দরজা পর্যন্ত খোলেন। কিন্তু তাতেও কিছু একটা হয় না। এদিকে সাধারণ মানুষ পড়েছে অসুবিধায়। কারণ তারা তাদের কাজ করতে এসে দেখে ডাকঘরের দরজা বন্ধ। কিন্তু কিছু জায়গায় এই ডাকঘরে কাজ স্বাভাবিক ভাবেই হয় বলে জানায় সিনিয়র সুপারিন্টেন্ডেন্ট।

এদিকে বিজেপি সাংসদ কংগ্রেস ও সিপি এমকে দেশদ্রোহী আখ্যা দিয়ে বলেন, তারা কর্মীদের ভুল পথে চালিত করছে। তাদের কথা মেনেই তারা কাজে যোগ দেয় নি। কিন্তু যারা আজকে এই কাজ ফাকি দিয়ে ধর্মঘটের পক্ষে কথা বলল তাদের বেতন থেকে ছুটি দুই কাটা যাবে।

সমস্তরকম এক্সক্লুসিভ খবর পেতে লাইক করুন