কেন মমতা বনধ বিরোধিতা করছে? প্রশ্নের ঝড় সোশ্যাল মিডিয়ায়

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনকে সমর্থন করছেন না অর্থাত্ নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন বিরোধিতায় সরব হয়েছেন অথচ 8 জানুয়ারি বামেদের ডাকা বন্ধ তিনি কোনও ভাবেই সমর্থন করছে না। সমস্ত রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের উদ্দেশ্যে বিজ্ঞপ্তি জারি করে বন্ধের দিন এবং বন্ধের পরের দিন কার্যালয়ে উপস্থিত থাকা বাধ্যতামূলক ঘোষণা করা হয়েছে।

তবে এই ইস্যুকে কেন্দ্র করে এবার সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যদি নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনকে সমর্থন না করেন তা হলে কেন 8 জানুয়ারি তারিখে বামেদের ডাকা বনধের বিরোধিতায় নেমেছেন? কেনই বা যাদবপুরের পড়ুয়াদের উপর লাঠি চালিয়েছে তার পুলিশ? এসব নিয়ে যেমন প্রশ্ন উঠেছে তেমনই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে তুষ্ট রাখতে কি এই সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি? মনে প্রশ্ন উঠছে।

যদিও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বরাবর বন্ধ বিরোধী তাই তো তাঁর রাজত্বকালে আজ অবধি তিনি কোনও বন্ধ ডাকেননি কিংবা বন্ধ সমর্থন করেননি আর তাই তো এমন সিদ্ধান্ত। যদিও একটা সময় মুখ্যমন্ত্রী নিজেই ৮৩ টি বন্ধ করেছিলেন অর্থাত্ আজ হঠাত্ বন্ধ বিরোধী হয়ে যাওয়ার পিছনে তাঁর যুক্তি জানতে একপ্রকার মুখিয়ে আছে বিরোধীরা।

সমস্তরকম এক্সক্লুসিভ খবর পেতে লাইক করুন

যদিও এই ব্যাখ্যা টুকুকে যথেষ্ট নয় এমনটাই বলছেন অনেকেই। তাই তো সামাজিক মাধ্যমে অনেকেই তৃণমূলের আট জন সাংসদকে নাগরিকত্ব বিল পাশ সবার সময় সংসদে উপস্থিত না থাকার বিষয়টিকে তুলে ধরেছেন তার ওপরে আবার কেউ কেউ নারদা কাণ্ডে সাংসদের গ্রেফতারির প্রশ্নে সিবিআই লোকসভার স্পিকারের কাছে অনুমতি চেয়েছেন সেই প্রশ্নও তুলে ধরেছেন।