সরকারের খরচে চলা সব মাদ্রাসা বন্ধ করা হবে, জানিয়ে দিলেন মন্ত্রী

সরকার পরিচালিত মাদ্রাসাগুলি বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল অসমের বিজেপি সরকার। সম্প্রতি এমনই একটি ঘোষণা করলেন অসমের বিজেপি সরকারের মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। গত বৃহস্পতিবার তিনি জানালেন, ভারত একটি ধর্মনিরপেক্ষ দেশ। এই দেশে জনগণের টাকায় কোন একটি নির্দিষ্ট ধর্মের শিক্ষাদান চলতে পারে না। শীঘ্রই অসীমের সমস্ত সরকার পরিচালিত মাদ্রাসা বন্ধ করে দেওয়া হবে। আগামী মাসেই এ-সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি সরকারিভাবে প্রকাশ করা হবে বলে জানালেন মন্ত্রী।

সরকার দ্বারা পরিচালিত মাদ্রাসাগুলি বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও, অসমের বেসরকারী প্রতিষ্ঠান দ্বারা পরিচালিত মাদ্রাসা গুলির বিষয়ে অবশ্য কোনো হস্তক্ষেপ করবে না সরকার। এমনটাই জানানো হয়েছে। উল্লেখ্য, অসমে এই মুহূর্তে সরকার দ্বারা পরিচালিত ৬১৪টি মাদ্রাসা আছে এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে দ্বারা পরিচালিত প্রায় ৯০০টি মাদ্রাসা আছে বলে জানা গেছে। এই মাদ্রাসা গুলিকে জামায়াত উলেমা নামক একটি সংগঠন পরিচালনা করে বলে জানা গেছে।

অসীম সরকারের এই ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে এআইইউডিএফ এর নেতা তথা সাংসদ বদরুদ্দিন আজমল জানালেন, ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গুলি প্রায় ৫০ থেকে ৬০ বছরের পুরনো। সরকার জোর করে মাদ্রাসা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিতে পারেনা। অসমের আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি সরকারকে হারিয়ে ক্ষমতায় এসে তারা আবারো মাদ্রাসা গুলিকে চালু করবেন। উল্লেখ্য, সরকার দ্বারা পরিচালিত মাদ্রাসাগুলি পরিচালনা করতেন প্রতিবছর প্রায় তিন থেকে চার কোটি টাকা খরচ হয়।

গত ফেব্রুয়ারি মাসে হিমন্ত বিশ্ব শর্মা ঘোষণা করেন, মাদ্রাসার পাশাপাশি অসমের সরকার দ্বারা পরিচালিত সংস্কৃত টোলগুলিকেও বন্ধ করে দেওয়া হবে। বৃহস্পতিবার তিনি জানালেন, সংস্কৃত টোল গুলির বিরুদ্ধে অস্বচ্ছতার অভিযোগ উঠেছে। অসমের বর্তমান সরকার দ্বারা পরিচালিত টোলের সংখ্যা প্রায় ১০০টি। এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান দ্বারা পরিচালিত টোলের সংখ্যা প্রায় ৫০০ টি। বর্তমানে অসমের সংস্কৃত টোলগুলি কুমার ভাস্কর বর্মা সংস্কৃত এন্ড এনসিয়েন্ট স্টাডিজ ইউনিভার্সিটির অধীনে আনা হয়েছে।