কো’ভি’ডে মৃ’ত্যু হওয়ার ১৮ দিন পর বাড়ি ফি’রে এলেন বৃদ্ধা, গোটা গ্রামে চা’ঞ্চ’ল্য

মৃত্যুর ঠিক ১৮ দিনের মাথাতে সুস্থ হয়ে বেঁচে ফিরলেন এক মহিলা! শুনতে অবাক লাগলেও, এমনই অদ্ভুত কাণ্ড ঘটেছে অন্ধ্রপ্রদেশের বিজয়ওয়াড়ায়। হাসপাতালের গাফিলতিতেই এমনটা ঘটেছে বলে মনে করা হচ্ছে। সম্প্রতি ওই মহিলা এবং তার ছেলে করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন। গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ার দরুন তাদের দু’জনকেই হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়।

গত ১২ই মে বিজয়ওয়াড়ার সরকারি এক হাসপাতালে ভরতি হন জাগগাইয়াপেট গ্রামের বাসিন্দা গিরিজাম্মা এবং তার ছেলে। ওই মহিলার স্বামী মুথিয়ালা গাড্ডায়া রোজ হাসপাতালে গিয়ে স্ত্রীকে দেখে আসতেন। তবে ১৫ই মে হাসপাতালে গিয়ে তিনি স্ত্রীকে কোথাও খুঁজে পাননি। হাসপাতালের নার্সদের জিজ্ঞেস করা হলে তারা জানিয়ে দেন যে গিরিজাম্মার জীবনাবসান হয়েছে।

এরপর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে একটি মৃতদেহ তুলে দেওয়া হয় পরিবারের হাতে। যেহেতু করোনা আক্রান্ত হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে বলে ধরা হয়েছিল, তাই মৃতদেহের প্লাস্টিকের মোড়ক খুলে তার স্বামী এবং পরিবার-পরিজনরা আর গিরিজাম্মার মৃত্যু প্রসঙ্গে নিশ্চিত হননি। সেই দেহটি সৎকার করে বাড়ি ফিরে আসেন তারা। এদিকে গিরিজাম্মার ৩৫ বছর বয়সের ছেলেরও মৃত্যু হয় ২৩শে মে। ১লা জুন পরিবার-পরিজনরা যখন গিরিজাম্মা এবং তার ছেলের শ্রাদ্ধ অনুষ্ঠান পালন করছিলেন তখন হঠাৎ করেই বাড়ি ফিরে আসেন গিরিজাম্মা।

তাকে দেখে প্রথমে অবাক হলেও পরিবারের সদস্যরা পরে নিজেদের ভুল বুঝতে পারেন। তবে বাড়ি ফিরে এসে নতুন শোকের সম্মুখীন হতে হলো ওই প্রৌঢ়াকে। করোনাকে হারিয়ে নিজে বেঁচে ফিরতে পারলেও ছেলেকে হারিয়েছেন তিনি! আপাতত এই শোককে সঙ্গী করেই জীবন কাটছে তার।